মিয়ানমার থেকে পণ্য আমদানি কমেছে, রাজস্ব ঘাটতি পৌনে ২ কোটি

কক্সবাজারের টেকনাফ স্থলবন্দরে গেল এপ্রিল মাসে পণ্য আমদানি কম হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ কোটি ৭১ লাখ ৬১ হাজার টাকা ঘাটতি রয়েছে।

টেকনাফ স্থলবন্দররে শুল্ক কর্মকর্তা মো. ময়েজ উদ্দিন জানান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবআির) কর্তৃক এপ্রিল মাসে ১২ কোটি ৩ লাখ টাকা লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। তার বিপরীতে এপ্রিল মাসে ২১৭ টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ১০ কোটি ৩১ লাখ ৩৯ হাজার টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ১ কোটি ৭১ লাখ ৬১ হাজার টাকা রাজস্ব কম আদায় হয়েছে।

তিনি জানান, এ মাসে মিয়ানমার থেকে ২৮ কোটি ৮৭ লাখ ৯৫ হাজার টাকার পণ্য আমদানি হয়। অপরদিকে ৪৫টি বলি অব এক্সপোর্টের মাধ্যমে ১ কোটি ৭৮ লাখ ৩০ হাজার টাকার পণ্য মিয়ানমারে রপ্তানি করা হয়েছে। এছাড়া শাহপরীরদ্বীপ করিডোরে ৩ হাজার ৩৫৬টি গরু, ১ হাজার ৬৩৬টি মহিষ আমদানি করে ২৭ লাখ ৯৬ হাজার টাকা রাজস্ব আদায় করা হয়।

তিনি আরও জানান, গত এপ্রিল মাসে সীমান্ত বাণিজ্যে মন্দাভাব বিরাজ করছে। মিয়ানমার থেকে নিয়মিত বিপুল পরিমাণ কাঠ আমদানি হলেও গত জানুয়ারি মাসের মাঝামাঝি থেকে মিয়ানমার থেকে কাঠ আমদানি বন্ধ রয়েছে। এছাড়া অতীতের মতো গবাদি পশুও আমদানি হচ্ছে না। মিয়ানমারর রাখাইনদের জলকেলী উৎসবের কারণে চাহিদা মতো পণ্য আমদানি হয়নি। সব মিলিয়ে মিয়ানমার থেকে পণ্য আমদানি কম হওয়ায় লক্ষ্যমাত্রা পূরণ করা সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য লিখুন :