ধর্ষণের অভিযোগে জুতার মালা, খুবি থেকে বহিস্কার ধর্ষক পাপ্পু

ঘুমের ওষুধ খাইয়ে এক ছাত্রীকে লাইব্রেরিতে নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত চারুকলা বিভাগের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র পাপ্পু কুমারকে খুবি থেকে সাময়িক বহিস্কার করা হয়েছে।

গত ৩ জুলাই খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর গত ১৫ জুলাই পাপ্পু বিশ্ববিদ্যালয়ে গেলে ছাত্ররা তাকে মুখে কালি লাগিয়ে গলায় জুতার মালা ঝুলিয়ে ক্যাম্পাস থেকে বের করে দেয়।

সূত্র জানায়, গত ৩ জুলাই খুবির চারুকলা অনুষদে চিত্রকলা প্রদর্শনী ছিল। পাপ্পু প্রদর্শনী দেখানোর নাম করে ওই মেয়েকে ডেকে নেয়। মেয়েটি চারুকলায় যাওয়ার পর তাকে ঘুমের ট্যাবলেট খাইয়ে চারুকলার লাইব্রেরিতে নিয়ে তাকে ধর্ষণ করে। এরপর পাপ্পু নিজের রুমে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে।

মেয়েটি লাইব্রেরির সিঁড়িতে কান্নাকাটি করার সময় রাত আড়াইটার দিকে দারোয়ান তাকে দেখতে পান। তখন তিনি পাপ্পুকে ডাকার ব্যবস্থা করেন। তবে প্রভাব খাটিয়ে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করে পাপ্পু।

মঙ্গলবার খুবির জনসংযোগ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আতিয়ার রহমানের দেওয়া এক বিবৃতিতে জানা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের ছাত্র পাপ্পু কুমার মন্ডলকে ছাত্রী ধর্ষণের অভিযোগে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে এবং তদন্ত শেষ পর্যায়ে বলেও জানানো হয়েছে।

খুবির ছাত্র বিষয়ক পরিচালক প্রফেসর মো. শরীফ হাসান জানান, এই ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী নির্যাতনবিরোধী কমিটি তদন্ত সম্পন্ন করেছে। পাপ্পুকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন :