নাটোর-৪: মনোনয়নের আশায় মাঠে তিন দলের ১৩ জন

আওয়ামী লীগের দুর্গখ্যাত নাটোর-৪ (গুরুদাসপুর-বড়াইগ্রাম) আসনে আওয়ামী লীগ বিএনপি ও জাতীয় পার্টির ১৩ জন মনোনয়ন প্রত্যাশী গণসংযোগে চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রার্থীদের গণসংযোগে মুখরিত হয়ে উঠেছে এ আসন। কে দলীয় মনোনয়ন পাচ্ছেন তা নিয়ে সংশয় কাটছে না এলাকার ভোটারের মধ্যে। তবে পাঁচ বারের আওয়ামী লীগের দখলে থাকা আসনটি পুনরুদ্ধার করতে চায় বিএনপি আর আওয়ামী লীগ চায় ৬ষ্ঠ বারের মত ধরে রাখতে।

গতকাল উপজেলার খুবজীপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ কর্তৃক আয়োজিত এক জনসভায় বর্তমান স্থানীয় সাংসদ অধ্যপক আব্দুল কুদ্দুস বলেন, ৬ষ্ঠ বারের মতো শেখ হাসিনাকে এই আসনটি উপহার দিতে চাই।

তবে আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নাটোর-৪ আসনে প্রার্থী বাছাই নিয়ে শংশয় আছে বড় দুই দলেই। এনিয়ে নানা জল্পনা কল্পনা চলছে নেতা-কর্মীদের মধ্যেও। আপাতত নির্বাচনকে ঘিরে বিএনপি জাতীয় পার্টির তেমন কোনো কর্মসূচি দেখা যাচ্ছে না। অপরদিকে আওয়ামী লীগের সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা চালাচ্ছেন দিন রাত প্রচারণা ।  

তৃণমূল আওয়ামী লীগ গত জাতীয় নির্বাচনের পরই দুই গ্রুপে বিভক্ত হয়ে পড়ে। সাংসদ, মেয়র কোন্দলে সংসদীয় ওই আসনটিতে নেতা-কর্মীদের মধ্যে চলছে ঠান্ডা লড়াই। বিভিন্ন অভিযোগ এনে দুই গ্রুপ পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন ও কর্মসূচি দিয়েছে কয়েকবার।

এ আসন থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী বর্তমান সাংসদ ও জেলা আ.লীগের সভাপতি অধ্যাপক মো. আব্দুল কুদ্দস, উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান পৌর মেয়র শাহনেওয়াজ আলী মোল্লা, কেন্দীয় যুব মহিলা লীগের সহ-সভাপতি এ আসনের একমাত্র মহিলা প্রার্থী বর্তমান এমপি কন্যা কোহেলী কুদ্দুস মুক্তি, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি আহম্মদ আলী। এদিকে বড়াইগ্রাম উপজেলা থেকে প্রার্থীতা চাইছেন উপজেলা আ.লীগের সহসভাপতি ডা. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারী ও জেলা সেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক আরিফুর রহমান সরকার। এতে করে এই আসনে আ.লীগের সর্মথকরা চরম বিপাকে পড়েছেন।

বিএনপিতে নাটোর-৪ আসনে মনোনয়ন নিয়ে রয়েছে দ্বন্দ্ব। নাটোর সদর-২ আসনের দুলু ও ৪- আসনের এম মোজাম্মেল হক, মশিউর রহমান বাবলু, বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ এর মধ্যে চলছে দীর্ঘদিনের কোন্দল। অপরদিকে বড়াইগ্রাম উপজেলা থেকে বিএনপির কেন্দ্রিয় কমিটির নেতা জন গমেজ ও বড়াইগ্রামের প্রয়াত উপজেলা চেয়ারম্যান সানাউল্লাহ নূর বাবুর স্ত্রী মহুয়া নূর কচি মনোনয়নের জন্য চেষ্টা তদবির চালাচ্ছেন।

এদিকে জাতীয় পার্টির সাবেক সাংসদ মো. আবুল কাশেম সরকার ও নাটোর জেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক আলাউদ্দিন মৃধা দলীয় মনোনয়নের জন্য নির্বাচনী এলাকায় রাস্তার মোড়ে মোড়ে ব্যানার, পোষ্টার দিয়ে প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এ আসনে বড় দুই দলে উপদলীয় কোন্দলের ফলে তৃণমূল নেতা-কর্মীরা তাঁদের ভোটার সমর্থক নিয়ে বিপাকে পড়েছেন। কে পাবেন দলীয় মনোনয়ন তা নিয়ে উদ্বেগ উৎকন্ঠা বিরাজ করছে দলীয় সমর্থকদের মধ্যে।

মন্তব্য লিখুন :