নোয়াখালীতে গণধর্ষণ: ৭ আসামি ৫ দিনের রিমান্ডে

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেপ্তার প্রধান আসামি রুহুল আমিননসহ গ্রেপ্তারকৃত সাত আসামির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

রবিবার (৬ জানুয়ারি) দুপুরে নোয়াখালীর ২ নম্বর আমলি আদালতের বিচারক নবনীতা গুহ শুনানি শেষে সাতজন আসামির পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। আসামিরা হলেন, বহিষ্কৃত আওয়ামী লীগ রুহুল আমিন, প্রধান আসামি মো. সোহেল, বাদশা আলম ওরফে কুড়াইল্যা বাসু, মো. স্বপন, মো. বেচু, জসিম উদ্দিন ও হাসান আলী ওরফে বুলু।

বিষয়টি নিশ্চিত করে নোয়াখালীর কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক কবির আহমদ বলেন, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে বিভিন্ন তারিখে আসামিদের প্রত্যেকের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করেছিলেন। সবগুলো আবেদনের শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেকের পাঁচ দিন করে রিমান্ড মঞ্জুরের আদেশ দেন।

প্রসঙ্গত, ৩০ ডিসেম্বর রোববার সকালে তিনি তার এলাকার ভোট কেন্দ্রে ভোট দিতে গেলে একটি প্রতীকে ভোট দিতে বলেন। তিনি তখন অন্য একটি প্রতীকে ভোট দেয়ার কথা বললে তাদের সঙ্গে তর্কাতর্কি হয়। এ সময় তারা তাকে ‘তোর কপালে শনি আছে’ বলে হুমকি দেন। পরে তিনি কেন্দ্র থেকে দ্রুত বের হয়ে বাড়ি ফিরে যান।

এরপর রবিবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে একই এলাকার ১০-১২ জন তাদের বাড়িতে এসে প্রথমে বসতঘর ভাঙচুর করে। এক পর্যায়ে তারা ঘরে ঢুকে তার স্বামীকে পিটিয়ে আহত করে। পরে স্বামী ও স্কুলপড়ুয়া মেয়েকে (১২) বেঁধে রেখে তাকে টেনে-হিঁচড়ে ঘরের বাইরে নিয়ে পিটিয়ে আহত করে এবং গণধর্ষণ করে। একপর্যায়ে তারা তাকে গলাকেটে হত্যা করতে উদ্যত হয়। এ সময় তিনি প্রাণ ভিক্ষা চাইলে তারা তাকে মুমূর্ষ অবস্থায় বাড়ির উঠান সংলগ্ন পুকুর ঘাটে ফেলে চলে যায়।

এ ঘটনায় সোমবার রাত ৯টায় ওই নারীর স্বামী বাদী হয়ে নয়জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন।

মন্তব্য লিখুন :