ধলাই সেতু এখন মরণফাঁদ

মৌলভীবাজারের ব্যস্ততম সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে শ্রীমঙ্গল-শমশেরনগর-ব্রাহ্মণবাজার সড়কের কমলগঞ্জ উপজেলাধীন অংশের ২৬ তম কিলোমিটার এলাকায় ভানুগাছ বাজার সংলগ্ন ধলই নদীর উপর প্রায় ১৪ বছর আগে নির্মিত সেতুটির হঠাৎ করে পূর্ব অংশের সাইড স্লিপার ভেঙে পড়েছে। এ কারণে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে যানবাহন চলাচল। রয়েছেয় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশঙ্কা।

বৃহস্পতিবার (১০ জানুয়ারি) সকাল থেকেই ঝুঁকি নিয়ে যান চলাচল করছে। সংশ্লিষ্ট বিভাগের পক্ষ থেকে প্রথমে লাল নিশানা টানানো হলেও পরে কোনো রকম জোড়াতালি দেয়া হয় সাইড স্লিপার। ঝুকিপূর্ণ অংশটি মজবুতভাবে মেরামত করতে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, মাত্র ১৪ বছরের মধ্যে ব্রিজের সাইড স্লিপার ভাঙা ও একাধিক খানাখন্দ সৃষ্টি হওয়ায় জনমনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে।

উল্লেখ্য, শ্রীমঙ্গল-শমশেরনগর-ব্রাহ্মণবাজার সড়কের কমলগঞ্জের ধলাই সেতুটির ১৯৯৮ সালের ১ ডিসেম্বর তৎকালীন যোগাযোগ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর উপস্থিতিতে ভিত্তিপ্রস্থর স্থাপন করেন তৎকালীন হুইপ স্থানীয় সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ মো. আব্দুস শহীদ। ঢাকার রূপায়ন নামক একটি কোম্পানী ৩ কোটি ২০ লাখ টাকা ব্যয়ে ধলাই সেতুর নির্মাণ কাজ পায়। রাজনৈতিক কারণে পরে কাজটি আওয়ামী লীগ ঘরণার সিলেটের এক ঠিকাদার নিয়ে নেয়।

এরপর সেতু নির্মাণের কাজের শুরুতেই নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠে। নির্মাণ কাজের সিডিউলের নিয়ম কানুনের তোয়াক্কা না করে সাব ঠিকাদার রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে কাজ করায় কাজের মান নিয়ে নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছিল। এ বিষয়ে তখন যোগাযোগ মন্ত্রণালয়, সড়ক ও জনপথ বিভাগসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে স্থানীয়রা লিখিত অভিযোগ করলেও রহস্যজনক কারণে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

মন্তব্য লিখুন :