মুক্তিযুদ্ধে ফরিদপুরের প্রথম শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধা জ্ঞাপন

মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় ফরিদপুরের প্রথম শহীদ হওয়া আট ব্রক্ষ্মচারীকে স্মরণ করলো বিভিন্ন সংগঠন।

১৯৭১ সালের ২১ এপ্রিল ফরিদপুর শহরের গোয়ালচামাট প্রভু জগদ্বন্ধু সুন্দরের শ্রী অঙ্গনে ঈশ্বর নামে মগ্ন আট ব্রক্ষ্মচারীকে পাকসেনারা গুলি করে হত্যা করে। সে দিনের সেই নৃশংস হত্যাকাণ্ডের প্রতি ঘৃণা জানিয়ে আত্মত্যাগি আট শহীদ ব্রক্ষ্মচারীকে স্মরণ করে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, শিবাজী নিকেতন, কর্ণেল তাহের মঞ্জু, সমাজ তান্ত্রিক দল জাসদ ও সাংস্কৃতিক সংগঠন আজকের প্রজন্ম শিল্প সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক চর্চা কেন্দ্র ও হরিপদ শিশু নাট্য দল।

সকাল ১০টায় প্রভু জগদ্বন্ধু সুন্দরের মন্দির সংলগ্ন চালতাতলায় শহীদ আট ব্রক্ষ্মচারীর সমাধী বেদিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জলন করে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। স্বাধীনতা যুদ্ধে আত্মত্যাগী শহীদ সাধকদের শ্রদ্ধা পর্বে মঙ্গল প্রজ্জলন উদ্বোধন করেন শিশু ঠাকুর শিবাজী পোদ্দার।

পরে শিবাজী নিকেতনের স্মরণ সভায় সংগঠনের সহ-সভাপতি নন্দিতা পোদ্দারের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন ফরিদপুর শহর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাক এ.টি.এম জামিল তুহিন, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, আজকের প্রজন্মের সভাপতি বিজয় পোদ্দার, কর্ণেল তাহের মঞ্চের ফরিদপুরে আহ্বায়ক কমরেট আশরাফুদ্দিন তারা, কবি পংকজ ভট্টাচার্জ, জাসদ নেতা হাফিজুর রহমান, ইয়াহিয়া মিলন, হরিপদ নাট্য দলের কর্মী বেবী সাহা, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মিলন সরকার প্রমুখ।

বক্তারা ফরিদপুরের মুক্তিযুদ্ধে প্রথম শহীদদের এই মৃত্যু দিবসটিকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি ও মর্যাদার দাবী জানান।

মন্তব্য লিখুন :