মুসল্লি সেজেও শেষ রক্ষা হলো না শিপুর!

শবেবরাতের রাত। ঘড়িতে তখন রাত ১১টা। কোমরে আধুনিক বিদেশি পিস্তল। সঙ্গে দুটি ম্যাগাজিন ও তাজা ৭ রাউন্ড গুলি। মসজিদে মুসল্লি সেজে কোনো একজনের জন্য অপেক্ষা করছিলেন সাহাবুদ্দিন মাহমুদ প্রকাশ শিপু (৪৫)।

উদ্দেশ্য আগন্তুকের কাছে অস্ত্র বিক্রি করা। কিন্তু মুসল্লি সেজেও শেষ রক্ষা হলো না এই অস্ত্র ব্যবসায়ীর।

রোববার রাতে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে হাটহাজারী থানা পুলিশ পৌর এলাকার ফটিকা গ্রামের কামালপাড়ার বায়তুস সালাহ জামে মসজিদ থেকে শিপুকে একটি বিদেশি পিস্তলসহ গ্রেফতার করে। সোমবার তাকে আদালতে পাঠানো হয়।

সাহাবুদ্দিন মাহমুদ প্রকাশ শিপু পৌর এলাকার পূর্ব আলমপুর গ্রামের আলী হোসেন মাতব্বরের বাড়ির মৃত ইউনুচ মিয়ার ছেলে। উপজেলার ভূমি অফিসের বিপরীতে ফয়জিয়া মেডিসিন হাউস নামে তার একটি গবাদিপশুর ওষুধের দোকান রয়েছে।

থানা পুলিশ সূত্র জানায়, শিপুকে ধরতে উপজেলা পরিষদ গেট এলাকায় অভিযান চালানো হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে শিপু মুসল্লির বেশে কামালপাড়ায় বায়তুস সালাহ জামে মসজিদে প্রবেশ করে। তবুও তার শেষ রক্ষা হলো না। মসজিদ থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ

এ ব্যাপারে হাটহাজারী সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আল মাসুম এ প্রতিবেদককে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে একটি আধুনিক বিদেশি পিস্তল, দুটি ম্যাগাজিন ও তাজা ৭ রাউন্ড গুলিসহ সাহাবুদ্দিন মাহমুদ শিপুকে ফটিকা গ্রামের কামালপাড়ার একটি মসজিদ থেকে গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনায় হাটহাজারী মডেল থানার এসআই আনিছ আল মাহমুদ বাদী হয়ে অস্ত্র আইনে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার বাদী ও অভিযানের নেতৃত্বে থাকা এসআই আনিছ আল মাহমুদ জানান, সাহাবুদ্দিন মাহমুদ প্রকাশ শিপু মূলত একজন অস্ত্র ব্যবসায়ী। আটকের দিন রাতে সে পার্শ্ববর্তী উপজেলা রাউজানের এক ব্যক্তি কাছে এ অস্ত্র বিক্রির উদ্দেশ্যে চট্টগ্রাম-রাঙ্গামাটি মহাসড়কের হাটহাজারী উপজেলা পরিষদ গেট এলাকায় অপেক্ষমাণ ছিল। সোমবার তাকে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন :