গড়াই নদীতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে অভিযান চলছে

কুষ্টিয়ায় গড়াই নদীকে দখল মুক্ত করতে উচ্ছেদ অভিযানে নেমেছে সদর উপজেলা প্রশাসন। 

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে শনিবার (১৮ মে) সকাল থেকে শুরু  হয়েছে এ উচ্ছেদ অভিযান। 

এ সময় ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আজাদ জাহান, সহকারি কমিশনার ভূমি (সদর) মুহাম্মদ মুছাব্বেরুল ইসলাম, কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নাসির উদ্দিনসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। উচ্ছেদ অভিযানের সময় বিপুল সংখ্যক পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয় নদী পাড়ে।  

অভিযানের শুরুতেই শহরের থানাপাড়া জিকে ঘাটে শেখ রাসেল সেতুর পশ্চিম পাশ ঘেঁষে গড়ে ওঠা স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হয়। 

উচ্ছেদ অভিযানের নেতৃত্ব দেওয়া সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুবায়ের হোসেন চৌধুরী বলেন, স্থানীয় কিছু অসাধু লোকজন গড়াই নদীর জায়গা দখল করে মার্কেটসহ দোকানপাট গড়ে তোলে। এসব দোকানপাট ভাড়া দিয়ে তারা অর্থ আয় করে আসছিল। গড়াই নদীকে দখল মুক্ত করতে দখলদারদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে গড়াই নদীর ওপর নির্মিত শেখ রাসেল সেতুর পাশে অবৈধ ভাবে জমি দখল করে গড়ে ওঠা প্রায় ৩০টি পাকা ও আধা পাকা ভবন ভেঙ্গে দেয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি। 

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পর্যায়ক্রমে সকল দখলদারদের হটিয়ে নদীর জায়গা রক্ষা করা হবে। ১০দিন আগে নোটিশ করা হয় দখলদারদের। এছাড়া শুক্রবার মাইকিং করা হয়। নোটিশ পাওয়ার পর দখলদাররা তাদের মালামাল সরিয়ে নেয়। 

কুষ্টিয়ার ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আজাদ জাহান বলেন, নদী রক্ষায় বর্তমান সরকার প্রধান শেখ হাসিনা বিশেষ গুরুত্ব দিয়েছেন। সেই নির্দেশনা মোতাবেক গড়াই নদী রক্ষায় বিশেষ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। সব দখলদারদের তালিকা প্রস্তুত করে উচ্ছেদ অভিযান চালানো হবে। প্রাথমিক ভাবে শহরের জিকে ঘাটে অবৈধ দখল করে গড়ে ওঠা স্থাপনা উচ্ছেদ করে দেয়া হলো। এরপর নোটিশ করে সব অবৈধ স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়া হবে। নদী তার স্বাভাবিক প্রবাহ যাতে ধরে রাখতে পারে সে জন্য এ উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

মন্তব্য লিখুন :