গুরুদাসপুরে মুক্তিযোদ্ধার মেয়েকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে জখম

নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধা মৃত. মোবারক হোসেনের মেয়ে তানজিলা আক্তারকে (২৮) পিটিয়ে ও কুপিয়ে হাত-পা ভেঙে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ।

সোমবার সকাল ১০টার দিকে চাপিলা ইউনিয়নের নওপাড়া গ্রামের এ ঘটনা ঘটে।

আহত তানজিলা জানান, সকাল ১০টার দিকে প্রতিবেশী মোহাম্মদ আলীর ছেলে সাদিকুলের নেতৃত্বে ১০/১৫ জন লোক এসে তাদের বাগানের ডাব পাড়তে থাকে। তিনি নিষেধ করলে আনিছুর, মুকুল, আশরাফুল, মহর, মহরম, সাত্তার, শুকুরসহ আরো অনেকে হাতে ধারালো অস্ত্র নিয়ে তার শরিরের বিভিন্ন স্থানে আঘাত করতে থাকলে ঘটনাস্থলেই ডান হাত ভেঙে যায় এবং পায়ে হাসুয়া দিয়ে কোপ দিলে গুরুতর জখম হন। এ সময় স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে গুরুদাসপুর উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়।

আহত তানজিলার ভাবি সেলিনা বেগম বলেন, তানজিলাকে হত্যার জন্য আঘাত করা হয়েছে। পূর্ব থেকেই তারা আমাদের বিভিন্নভাবে অন্যায় অত্যাচার ও জমি-জমা দখল করে আসছে। এসব ঘটনার প্রতিবাদ করতেই তারা আমাদের ওপর হামলা চালায়। আশরাফুলের তিন ভাই ওসি হওয়ায় তাদের ক্ষমতার বলে প্রতিপক্ষরা এসব কর্মকাণ্ড করে যাচ্ছে। আমরা এর ন্যায় বিচার চাই।

প্রতিপক্ষ আশরাফুল ও তার লোকজন মারধরের কথা অস্বীকার করেন।

গুরুদাসপুর উপজেলা স্ব্যাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. কামরুল আহসান বলেন, আহত তানজিলার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। তার ডান হাতের দুইটা হাড় ভেঙে গিয়েছে এবং দুই পা মারাত্বকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শরীরের বিভিন্ন জায়গায় জখমের চিহ্ন রয়েছে।

গুরুদাসপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি)মো.মোজাহারুল ইসলাম বলেন, এখনও অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য লিখুন :