বগুড়ায় পুলিশের চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ১

বগুড়ায় পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার মাধ্যমে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে আহসানুল কবির (৫০) নামের এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার দুপুরে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

আহসানুল কবির পাবনা সদর থানার মৃত সামছুদ্দিনের ছেলে। তিনি বগুড়া শহরের লতিফপুর কলোনী এলাকায় দীর্ঘদিন যাবত বসবাস করেন।

জানা যায়, বগুড়া পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের ছাত্র বায়েজিদকে পুলিশ কনস্টেবল পদে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন আহসানুল কবির এবং বলেন আমি অনেক ছেলেকে পুলিশের চাকরি দিয়েছি। এই প্রতিশ্রুতিতে কয়েকদিন আগে বায়েজিদকে সঙ্গে নিয়ে বগুড়া হাইওয়ে পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে যান আহসানুল কবির। বায়েজিদকে বাইরে রেখে তিনি হাইওয়ে পু্লশি সুপারের কক্ষে প্রবেশ করেন।

সেখান থেকে বের হয়ে বায়েজিদকে জানানো হয়, আলোচনা হয়েছে তিন লাখ টাকা অগ্রীম দিতে হবে। বায়েজিদ তখন বিষয়টি তার পরিবারকে জানালে, তারা খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারেন হাইওয়ে পুলিশ সুপার নিয়োগ বোর্ডের কেউ না। এতে তাদের সন্দেহ হলে তারা বিষয়টি বগুড়া সদর থানা পুলিশকে অবগত করেন। পরে পুলিশ কৌশলে আহসানুল কবিরকে গ্রেপ্তার করে থানায় আনে।

এদিকে, খবর জানাজানি হলে কাহালু থানার কোহালী গ্রামের মশিউর রহমান থানায় হাজির হয়ে অভিযোগ করেন তার ভাতিজা আসিফ খানকে পুলিশে চাকরি দেওয়ার কথা বলে আহসানুল কবির ৬ লাখ টাকা চুক্তি করেন। এরমধ্যে গত মঙ্গলবার সপ্তপদী মার্কেটের সামনে ৯২ হাজার টাকা গ্রহণ করেন।

বগুড়া সদর থানার ওসি এসএম বদিউজ্জামান বলেন, বায়েজিদের সূত্র ধরে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এর পর কাহালু থানার কোহালী গ্রামের মশিউর রহমান বাদী হয়ে আহসানুল কবিরের নামে মামলা করেছে।

মন্তব্য লিখুন :