কুমিল্লায় ধর্ষণের অভিযোগে ভুয়া চিকিৎসক আটক

কুমিল্লার লাকসামে নিজ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত এক তরুণীকে চার মাস ধরে ধর্ষণের অভিযোগে মীর হোসেন নামে এক ভুয়া চিকিৎসককে আটক করেছে র‌্যাব।

বুধবার (১০ জুলাই) দুপুরে লাকসাম জংশন এলাকার ‘ডিজিটাল এডভাইস সেন্টারে’ অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

মীর হোসেন লাকসাম পৌরসভার বাইনছাটিয়া গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ, ভয়-ভীতি দেখিয়ে এবং চেতনানাশক ইনজেকশন পুশ করে ভিকটিম তরুণীকে সে দীর্ঘ চার মাস ধরে ধর্ষণ করে এবং প্রতিবারই ধর্ষণের দৃশ্য ভিডিওতে ধারণ করে। এ ছাড়া তার প্রতিষ্ঠানের আরো কয়েকজন নারী কর্মীকেও ভয়-প্রলোভন দেখিয়ে ধষর্ণের অভিযোগ উঠেছে।

র‌্যাব কর্মকর্তারা বলছেন, তরুণী তার লিখিত অভিযোগে জানিয়েছেন, বিগত ৪ মাসে মীর হোসেন ব্যাথানাশক ইনজেকশন দিয়ে অন্তত অর্ধশতাধিক বার তাকে ধর্ষণ করেছে। এ ছাড়াও প্রতিষ্ঠানের আরও কয়েকজন তরুণীকে বিভিন্ন প্রলোভন অথবা চাকরি থেকে ছাঁটাইয়ের ভয়-ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করেছে।

বৃহস্পতিবার সকালে এ বিষয়ে জানতে চাইলে র‌্যাব-১১ কুমিল্লার কোম্পানী কমান্ডার প্রণব কুমার বলেন, ভিকটিম তরুণীর অভিযোগের আলোকে আমরা ওই প্রতিষ্ঠানটিতে অভিযান চালিয়ে এর পরিচালক কথিত চিকিৎসক মীর হোসেনকে আটক করেছি।

মন্তব্য লিখুন :