চলনবিলে মা ও পোনা মাছ শিকারের মহোৎসব

মাঝ বর্ষাতে চলনবিলে পানি এসেছে। এসেছে নানা ধরনের মাছ। চলছে জেলেদের মাছ ধরার উৎসব। তবে না বুঝেই নিজেদের প্রয়োজনের তাগিতে শিকার করছেন মা এবং পোনা মাছ। এতে শুরুতেই প্রজনন ব্যহত হবে মাছের। এমনটা আশঙ্কা করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। কেন না যে মাছ এখন ডিম দেবে। সেই মাছ শিকার করে বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে। এমনকি পোনা মাছগুলোকেও ছাড় দেওয়া হচ্ছে না।

স্থানীয় সচেতন সমাজ মনে করেন এখনি উপজেলার বিভিন্ন বাজারে অভিযান চালানো দরকার। তা না হলে ব্যপক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে।

শুক্রবার ভোরে চলনবিল অধ্যুষিত এলাকা নাটোরের গুরুদাসপুর উপজেলার বিলশা এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, জেলেরা জাল দিয়ে পোনা মাছ শিকার করছেন এবং বিলের মাঝ খানে বাঁশের বেড়া দিয়ে মা মাছ শিকার করছেন। এ সকল মা ও পোনা মাছ বিক্রি হচ্ছে উপজেলার বাণিজ্যনগরী চাঁচকৈড় মাছ বাজারসহ উপজেলার বিভিন্ন বাজারে।

শুক্রবার সকালে চাঁচকৈড় বাজারে গিয়ে দেখা যায়, কয়েকজন মৎস্য ব্যবসায়ী মা বোয়াল মাছ ও টাঁকি মাছ বিক্রি করছে। দামটাও অনেক বেশি। সেই সাথে বিক্রি হচ্ছে বিভিন্ন জাতের পোনা মাছ।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক মৎস্য ব্যবসায়ী বলেন, আমরা কি করবো। জেলেরা আমাদের কাছে এসে মা ও পোনা মাছ বিক্রি করে যাচ্ছে। আমরা আবার সেগুলো বাজারে আসা ক্রেতাদের মাঝে বিক্রয় করছি। তবে আজকের পর থেকে আর কোনো মা ও পোনা মাছ বিক্রি করবো না। কেউ বিক্রি করতে আসলে প্রশাসনকে খবর দিবো।

চলনবিলের জেলে মো.আফজাল হোসেন জানান, আমার জানামতে আমাদের কোনো জেলে মা এবং পোনা মাছ শিকার করছে না। কারণ তাদের বলা আছে মা ও পোনা মাছ যেন শিকার করা না হয়। তার পরেও যদি কেউ করে থাকে তাদের ব্যাপারে আমরা প্রশাসনকে অবহিত করবো।

গুরুদাসপুর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মো. আলমগীর কবির মুঠোফনে বলেন, চলনবিলে মাত্র পানি আসা শুরু করেছে। তবে আমরা প্রতিদিন চলনবিলের বিভিন্ন অঞ্চলসহ বাজারগুলোতে অভিযান চালাবো। যেন কেউ মা এবং পোনা মাছ শিকার না করতে পারে।

মন্তব্য লিখুন :