আমতলীতে স্বামীর সাথে অভিমান করে গৃহবধূর আত্মহত্যা

লেখাপড়া করতে বাঁধা দেয়ায় স্বামী কিরণ চন্দ্র শীলের সাথে অভিমান স্ত্রী কেয়ামনি (১৭) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন।

আমতলী উপজেলার গাজীপুর বন্দরে বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) রাতে এ ঘটনা ঘটে।

জানাগেছে, উপজেলার গাজীপুর বন্দরের স্বর্গীয় কৃষ্ণ চন্দ্র শীলের কন্যা কেয়ামনি এ বছর এপ্রিল মাসে পার্শ্ববর্তী হলদিয়া ইউনিয়নের রাওঘা গ্রামের রবিন চন্দ্র শীলের ছেলে কিরণ চন্দ্র শীলের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বিয়ে হয়। কেয়ামনি এ বছর গাজীপুর বন্দর মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করেছে। 

স্বামী কিরণ চন্দ্র শীল স্ত্রী কেয়ামনিকে লেখাপড়া করাতে রাজি না। স্বামীকে না জানিয়ে গত মাসে বকুলনেছা মহিলা কলেজে ভর্তি হয় কেয়ামনি। এ নিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মাঝে বিরোধ চলে আসছিল। 

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্ত্রী কেয়ামনি স্বামী কিরণের সাথে লেখাপড়ার বিষয় নিয়ে মোবাইল ফোনে কথা কাটাকাটি হয়েছে বলে জানান দাদা হরিচরন শীল। এ ঘটনায় স্বামীর সাথে অভিমান করে ওইদিন রাত সাড়ে ৮ টার দিকে স্ত্রী কেয়ামনি দাদার বাড়ির ঘরের বারান্দায় ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস  দেয়। এ সময় ওই ঘরে কেউ ছিল না। ঘটনার ঘন্টাখানেক পরে দাদা হরিচরন শীল নাতনিকে গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ গিয়ে গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় তার লাশ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় আমতলী থানায় একটি অপমৃত্যূ মামলা হয়েছে। শুক্রবার সকালে পুলিশ লাশের ময়না তদন্তের জন্য বরগুনা মর্গে প্রেরণ করেছে।

মন্তব্য লিখুন :