মোশাররফকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

ময়মনসিংহের সদর উপজেলায় মাদ্রাসা ছাত্র মোশাররফ (১০) কিডনি রোগে আক্রান্ত। তার দুটি কিডনিই কোনো কাজ করছে না। যে কারণে এখন জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে তিনি।

মোশাররফ উপজেলার ৬নং চর ঈশ্বরদিয়া ইউনিয়নের চর হরিপুর গ্রামের অটোচালক জালাল উদ্দিনের ছেলে। সে শম্ভুগঞ্জ রঘুরামপুর এলাকার আবু বক্কর সিদ্দিক (রাঃ) মাদ্রাসার নাজেরা বিভাগের ছাত্র।

জালাল উদ্দিনের প্রতিবেশি সোহাগ মিয়া বলেন, এলাকার সকল মানুষ মোশাররফকে বাঁচানোর জন্য চেষ্টা করছে। যে যেভাবে পারছে সহায়তা করছে। আমরা স্কুল, কলেজসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ঘুরে ঘুরে টাকা সংগ্রহ করছি।

সোহাগ মিয়া আরও বলেন, মোশাররফের খেলার সাথীরা প্রত্যকদিন সকালে ঘুম থেকে উঠেই গলায় হাত মাইক ঝুলিয়ে বলছে, আমাদের খেলার সাথী মোশাররফকে বাঁচাতে সহায়তা করুন, তার দুটি কিডনিই নষ্ট হয়ে গেছে। এ ভাবেই মাস খানেক যাবত গ্রামের বিভিন্ন মোড়ে ঘুরে মোশাররফের খেলার সাথীরা টাকা সংগ্রহ করছে মোশাররফকে বাঁচাতে।

এদিকে প্রতিবেশি মহিলারা প্রতিদিন তাদের ঘরে মুষ্ঠি মুষ্ঠি চাল জমা করেন। এভাবেই সপ্তাহ খানেক চাল জমিয়ে বিক্রি করে মোশাররফের চিকিৎসার জন্য টাকা দিচ্ছেন।

এমনিই এক মহিলার সাথে কথা বললে তিনি বলেন, মোশাররফের মত আমারও একটা ছেলে আছে। আজ যদি এই রোগ মোশাররফের না হয়ে আমার ছেলের হতো তাহলে কি মানুষ আমাকে সহায়তা করতো না। এ কথা বলেই তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন। আর বলেন, মোশাররফকে বাঁচাতে আপনারা সকলেই সহায়তা করেন।

মোশাররফের বাবা জালাল উদ্দিন বলেন, আজ থেকে প্রায় তিন মাস আগে মাদ্রাসা থেকে খবর আসে মোশাররফ অসুস্থ্য। বাড়িতে আনার পর তার কিছু পরিবর্তন দেখা যায়। হঠাৎ করে ভয় পাওয়া, চিৎকার করা, হাত-পা এদিক ওদিক ছড়াতে থাকে। চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংজ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে প্রথমে কোনো রোগ ধরা পড়েনি। এভাবে দুই মাস বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরিক্ষা করার পর জানতে পারি আমার ছেলের দুটি কিডনি অকেজো হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, পরে ময়মনসিংহ মেডিকেলে কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে ১১ দিন চিকিৎসা করার পর চিকিৎসকরা মোশাররফকে ঢাকা শিশু হাসপাতালে রেফার্ড করে। এখানে ১৩ দিন যাবত মোশাররফের চিকিৎসা করাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন, অটো চালিয়ে আমার সংসার চলে। এখন দৈনিক ছেলের চিকিৎসা বাবদ ৮ থেকে ৯ হাজার টাকা খরচ হয়। আমি গরিব মানুষ। আমার পক্ষে দৈনিক এত টাকা খরচ সম্ভব হচ্ছে না।

তিনি সরকারের সহায়তা কামনা করে বলেন, দেশের অনেক মানুষকে সরকার চিকিৎসা করাতে সহায়তা করছে। আমিও আমার ছেলেকে বাঁচানোর জন্য সরকারের সহায়তা কামনা করছি। এ ছাড়াও তিনি সমাজের বিত্তবানদের কাছে ছেলের চিকিৎসার জন্য সহায়তা চেয়েছেন।

ডাক্তার বলছে, মোশাররফ (Acute kidny failore) রোগে আক্রান্ত। আকস্মিকভাবে সে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েছে। যে কারণে, তার দুটি কিডনি কাজ করছে না। ফলে তার শরীরে অতিরিক্ত বজ্র পদার্থ ও পানি জমে যাচ্ছে এবং শিশুটির অন্যান্য অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ অকেজো হয়ে যাচ্ছে। অতি তাড়াতাড়ি কিডনির বিকল্প ব্যবস্থার মাধ্যমে শিশুর শরীর থেকে বজ্র নিস্কাশন করা জরুরি। নিয়মিত কিডনি ডায়ালাইসিস করাতে পারলে মোশাররফকে বাঁচানো সম্ভব।

জালাল উদ্দিন সমাজের বিত্তবানদের কাছে ছেলের চিকিৎসার জন্য সহায়তা আবেদন করেছেন। (জালাল উদ্দিন-০১৭৫৮-১৪২৮২৪)
(বিকাশ পার্সোনাল-০১৮২৪-৩৪১৯৭৫)

মন্তব্য লিখুন :