আমাকে একটা হুইল চেয়ার দিবেন?

পিতৃহারা জিসাদ হাসান জাহিদ (১২) জন্ম থেকেই প্রতিবন্ধী। পায়ের নিচের অংশ চিকন ও বাঁকা হওয়ায় হামাগুঁড়ি দিয়ে হাটতে হয় তাকে।

জাহিদের মা জাহানারা বেগম বাড়ির সামনে ঘর ভাড়া নিয়ে মুদি দোকান করে জীবিকা নির্বাহ করেন। দুই মেয়েকে বিয়ে দিয়েছেন। প্রতিবন্ধী ছেলেকে নিয়েই এখন তার সংসার। ছেলেকে ভর্তি করে দিয়েছেন ছোঁয়া রেসিডেন্সিয়াল নামের একটি বেসরকারি স্কুলে।

জাহিদ এখন পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ে। ছবি তুলতে চাইতেই হাস্যোজ্জল মুখে প্রশ্ন করেন, ছবি তুলে কি করবেন। আমাকে একটা হুইল চেয়ার দিবেন? আমি গাড়িতে চড়ে স্কুলে যাব। আমার স্কুলে যেতে খুব কষ্ট হয়।

মুহূর্তেই পরিবেশটা অন্যরকম হয়ে গেল। আমরা কি পারি না জাহিদের মতো একজন প্রতিবন্ধীর জন্য হুইল চেয়ারের ব্যবস্থা করতে। তার আগামী ভবিষ্যত গড়ে তোলার জন্য লেখাপড়ার দায়িত্ব নিতে? সমাজের বিত্তবানরা একটু এগিয়ে আসলেই জাহিদের আর হামাগুঁড়ি দিয়ে হাঁটতে হবে না। এ জন্য সকলের সাহায্য প্রার্থনা করেছে তার পরিবার।

জাহিদের বাবা মিজানুর রহমান ৫ বছর আগে মারা গেছে। বাড়ি কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের ভেলুর খামার গ্রামে।

মন্তব্য লিখুন :