যুবলীগ কর্মীর হাতের কব্জি কর্তন, অভিযুক্ত চেয়ারম্যান

পূর্ব শত্রুতার জের ধরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে এক যুবলীগ কর্মীর দু’হাতের কব্জি কেটে নিয়েছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

বুধবার দিনগত রাতে উজিরপুরের জলবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। আহত যুবক নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নের লাভাঙ্গা গ্রামের খোদাবক্সের ছেলে রুবেল হোসেন।

এ ঘটনার জন্য উজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দিনের লোকজনকে দায়ী করছেন রুবেল ও তার সহযোগীরা। তবে উজিরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তা অস্বীকার করেছেন।
 
অভিযোগ, বুধবার রুবেল ও তার দুই বন্ধু রবিউল এবং হাবু উজিরপুরের জলবাজার এলাকায় গেলে রাত ৮টার দিকে তাদের ধরে নিয়ে যায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দিন ও তার সহযোগীরা। পরে তাদের একটি ঘরে বন্দি করে রাত ২টার দিকে রুবেলের ২ হাতের কব্জি কেটে ৩ জনকে ছেড়ে দেয়।

অন্যদিকে উজিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ফয়েজ উদ্দিন বলেন, একজনকে কোপানোর কথা শুনেছি। তবে ঘটনাস্থল আমার ইউনিয়নের বাইরে ৬ নম্বর বেড়িবাঁধ এলাকায়। প্রতিপক্ষের লোকজন ফাঁসানোর জন্য আমার ওপর দায় চাপাচ্ছে।

দু’হাত হারানো রুবেলের দাবি, শিবগঞ্জের উজিরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ও আওয়ামী লীগ নেতা ফয়েজ উদ্দিনের সঙ্গে নদীর ঘাট নিয়ে দীর্ঘদিন দ্বন্দ্ব চলছিল। তারাই তাকে চোখ বেঁধে তুলে নিয়ে গিয়ে হাত কেটে দিয়েছে।

এ ব্যাপারে চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশ সুপার টি এম মুজাহিদুল ইসলাম জানান, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ২ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে এ ঘটনায় থানায় কেউ কোনো অভিযোগ দায়ের করেনি।

মন্তব্য লিখুন :