মোরেলগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার কবরস্থানে দোকানঘর নির্মাণ

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে এক মুক্তিযোদ্ধার কবরস্থানে আরেক মুক্তিযোদ্ধা ভাইয়ের পাকা দোকানঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। 

মঙ্গলবার (৩ সেপ্টেম্বর) বেলা ১১টায় উপজেলার পঞ্চকরণ ইউনিয়নের মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আহম্মদ আলী খানের পরিবারের সদস্যরা স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীদের কাছে এ অভিযোগ করেন। 

অভিযোগে বলা হয়, বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আহম্মদ আলী খানের পৈত্রিক সম্পত্তির ৬ শতক জমির উপর রয়েছে পূর্বপুরুষদের নির্ধারণ করা পারিবারিক কবরস্থান। যেখানে মরহুম মুক্তিযোদ্ধার বাবা আব্দুর গফুর খান, মাতা সুর্যবান ও আছিয়া বেগম এবং ভাই সদ্য প্রয়াত বীর মুক্তিযোদ্ধা খান নূরুল ইসলামসহ পরিবারের প্রায় ৩০ জনকে সমাহিত করা হয়েছে। 

অথচ এসবের তোয়াক্কা না করেই গায়ের জোরে সেই পুরানো পারিবারিক কবরস্থানের উপর দুই কক্ষ বিশিষ্ট পাকা দোকান ঘর নির্মণ করে অন্যত্র বিক্রি করে দেন মরহুম মুক্তিযোদ্ধা আহম্মদ আলী খানেরই আপন ভাই মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান খান। 

মুক্তিযোদ্ধা আহম্মদ আলীর ছেলে কেএ মহিউদ্দিন মিন্টু ক্ষোভের সাথে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে ও দেশ মৃত্তিকার টানে সেদিন যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল আমার বাবা মরহুম আহম্মদ আলী খান। দেশ স্বাধীন করে বীরের বেশে বুক উচিয়ে ঘরে ফিরেছিল বাবা। আর আজ সেই স্বাধীন দেশেই মুক্তিযোদ্ধা বাবার কবরের জায়গাটুকু রক্ষা করতে পারছিনা। 

তিনি বলেন, পারিবারিক কবরস্থানে চির নিদ্রায় শায়িত পিতা মুক্তিযোদ্ধা মরহুম আহম্মদ আলী খানের কবরের জায়গা রক্ষা করতে বিভিন্ন দপ্তরে দ্বারে দ্বারে ঘুরতে হচ্ছে ন্যায় বিচারের জন্য। সর্বশেষ পরিবারের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে তার দপ্তরে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। এবার আশা করছি ন্যায় বিচার পাবো। 

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান খান অভিযোগটি সঠিক নয় দাবি করে বলেন, পৈত্রিক জমিতে আগে থেকেই কাঠের দোকান ঘর ছিল, সেটি ভেঙ্গে পাকা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। 

সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পাঁচগাও বাজার সংলগ্ন মুক্তিযোদ্ধার পারিবারিক কবরস্থানে পাকা ভবন দোকানঘর তৈরি করা হয়েছে। স্থানীয়ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করেও সম্ভব হয়নি। নিজেদের মধ্যে পারিবারিক দ্বন্দ রয়েছে। 

এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মো. কামরুজ্জামান বলেন, উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে ঘটনাস্থল পরির্দশন করা হয়েছে। শিঘ্রই বিষয়টি সর্ম্পকে প্রতিবেদন পাঠানো হবে।

মন্তব্য লিখুন :