গৌরনদীতে কলেজ ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বার্থী ডিগ্রী কলেজের সামনের একটি গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় কাওছার হোসেন (২৭) নামের মানসিক ভারসাম্যহীন এক কলেজ ছাত্রের লাশ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার সকালে গৌরনদী মডেল থানা পুলিশ নিহত ছাত্রের লাশ উদ্ধার করে। কাওছার খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের ব্রাম্মনগাঁও (ইল্লা) গ্রামের সিরাজ সরদারের ছেলে।

ঘটনা স্থলের আস পাশের এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানাগেছে, গতকাল ভোরে ঘুম থেকে জেগে এলাকাবাসী কলেজের সামনের একটি চাম্বল গাছের সাথে অজ্ঞাতনামা এক যুবকের লাশ ঝুলতে দেখে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পরে পুলিশ এসে লাশের পরিচয় সনাক্ত ও তার স্বজনদের খুজে বের করে।

নিহতের স্বজনরা জানান, কাওছার হোসেন বার্থী ডিগ্রী কলেজ থেকে ২০১২ সালে এইচএসসি পাস করে সরকারি গৌরনদী কলেজে অনার্সে ভর্তি হয়। এরপর বন্ধু বান্ধবের নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ে। অতিরিক্ত মাত্রায় মাদক সেবনের ফলে কিছুদিন যেতে না যেতেই সে মানসিক রোগীতে পরিণত হয়। নেশার ঘোরে মাঝে মধ্যে সে পিতা-মাতা ও স্বজদের মারধর করত।

স্বজনরা তার মানসিক রোগের চিকিৎসার পাশাপাশি নেশা ছাড়াতে তাকে রিহ্যাবে পাঠায়। এতেও সে নেশা ছাড়তে পারেনি। নেশার জন্য উন্মাদ হয়ে গত ৩/৪ মাস পূর্বে সে বাড়ির পাশের একটি চালতা গাছের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে ঝুলে পড়ে। স্বজনরা দেখতে পেয়ে সেখান থেকে তাকে উদ্ধার করে। ফলে ওই সময় প্রাণে বেঁচে যায় সে। গত বুধবার সন্ধ্যায়সে তার বাবাকে ধারালো দা নিয়ে ধাওয়া করে।

নিহতের চাচা আব্দুল করিম সরদার জানান, বাড়িতে অনেক উন্মাদনা করার পর বুধবার দিবাগত রাত ৯টার দিকে সে বাড়ির সামনের চায়ের দোকানের সামনের বেঞ্চে গিয়ে বসে। কিছুক্ষণ পরে সেখান থেকে সে ইল্লা বাসষ্ট্যান্ডের দিকে যায়। রাতে আর সে বাড়ি ফেরেনি। সকালে পুলিশের মাধ্যমে ও লোকমুখে আমরা জানতে পারি যে কাওছার তার কলেজের সামনে গিয়ে চাম্বল গাছের সাথে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

গৌরনদী মডেল থানার ওসি গোলাম সরোয়ার জানান, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে। আবেদনের প্রেক্ষিতে ময়না তদন্ত ছাড়াই স্বজনদের কাছে তার লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন :