অন্তঃসত্ত্বা প্রেমিকাকে রেখে প্রেমিকের বিয়ে, লজ্জায় আত্মহত্যা

নোয়াখালীর হাতিয়ায় প্রেমে প্রতারিত হয়ে অন্তঃসত্ত্বা কিশোরী গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার (৫ সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত আনুমানিক ৩টার দিকে নিজ বসতঘরে গলায় ফাঁস দিয়ে সে আত্মহত্যা করে।

নিহত কিশোরী বকুল আক্তার (১৬) হাতিয়ার বুড়িরচর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের রেহানিয়া গ্রামের ইছা আলী বাড়ীর মো. নুরুল ইসলামের মেয়ে।

নিহতের মা আছিয়া খাতুন ও বোন অভিযোগ করেন, নিহত বকুল বেগমের সাথে একই গ্রামের মোয়াজ্জম হোসেন রেজুর ছেলে মো. শাহারাজ উদ্দিন (২২) এর প্রেমের সম্পর্ক ছিল। শাহারাজ বিয়ের  প্রলোভন দেখিয়ে গত ৩ মাস আগে বকুলের সাথে শারীরিক সম্পর্ক করে। পরে বকুল অন্তঃসত্ত্বা হলে পরিবারের পক্ষ থেকে শাহারাজকে বিয়ের জন্য চাপ দেয়া হয়। সে বিয়ে করবে করবে বলে বিভিন্নভাবে সময়ক্ষেপণ করতে থাকলে ভুক্তভোগীর পরিবার বিষয়টি স্থানীয় ইউপি সদস্য আকতার হোসেনকে জানায়।

তারা জানান, ইউপি সদস্য শাহারাজের সাথে এ বিষয়ে কথা বলে বিষয়টি সমাধান করবে বলে বকুলের পরিবারকে আশ্বাস দেয়। কিন্তু পরে ইউপি সদস্য এ ঘটনা সমাধানের নামে নিরব ভূমিকা পালন করে থাকে। শাহারাজ উদ্দিন গত ৪ দিন আগে অন্যত্র বিয়ে করে। বিষয়টি বকুল জানতে পেরে রাগে ক্ষোভে নিজ গায়ের ওড়না গলায় পেঁচিয়ে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

হাতিয়ার স্থানীয় পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. নাজির আহম্মেদ বলেন, আমি ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করি এবং নিহতের পরিবারের সাথে কথা বলেছি। তারা এ ঘটনায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে নিয়মিত মামলা করবে বলে পুলিশকে জানায়। পরবর্তীতে ভুক্তভোগীর পরিবার মামলা দায়ের করলে পুলিশ আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

মন্তব্য লিখুন :