মন্ত্রী-এমপির নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা, গ্রেপ্তার ধুনট স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি

বগুড়ার ধুনট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদকে (৩৮) গ্রেপ্তার করেছে। শতাধিক ব্যক্তিকে চাকরি দেয়ার নামে অন্তত কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

বুধবার (২ অক্টোবর) বিকাল ৪টায় পৌর এলাকার চরধুনট গ্রাম থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত সুলতান মাহমুদ ধুনট পৌর এলাকার সদরপাড়ার মৃত আজিজার রহমানের ছেলে।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সুলতান মাহমুদ ২০১৫ সালে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং দু’বছর পর সভাপতি’র পদ লাভ করেন। স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃত্বে আসার পর থেকেই দখলবাজি, তদবির, নিয়োগ বাণিজ্যসহ বিভিন্ন অপরাধে জড়িয়ে পড়েন তিনি। সবচেয়ে বেশি নিয়োগ বাণিজ্য করেছেন পুলিশ কনস্টেবল, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, স্বাস্থ্য বিভাগ, ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি দেয়ার নামে।

সাবেক মন্ত্রী, এমপি, প্রশাসনিক ও বিভিন্ন অধিদফতরের কর্মকর্তাদের নাম ব্যবহার করে রাজনীতিবিদ, পুলিশ, আইনজীবী, শিক্ষকসহ অসংখ্য পেশার মানুষের সাথে প্রতারণা করেছেন। টাকা হাতিয়ে নেয়ার সময় সুলতান মাহমুদ রূপালী ব্যাংক ধুনট শাখায় তার সঞ্চয়ী হিসাবের (নং-১৩৬) চেক দিয়েছেন। চাকরি দিতে না পারলে এক মাসের মধ্যে ব্যাংক থেকে টাকা তুলে দেয়ার আশ্বাস দেন। কিন্তু তার ওই ব্যাংক হিসাবে কোনো টাকা না থাকায় হতাশ হয়ে পড়েন চাকরি প্রার্থীরা।

তার প্রতারণার শিকার বগুড়া জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহসভাপতি কোয়েল ইসলাম জানান, তিনি নিজেকে এক মন্ত্রীর নাতনী জামাই পরিচয় দেন। তিনি তার (কোয়েল) মেয়ে জামাইকে অ্যাসেনসিয়াল ড্রাগস কোম্পানিতে চাকরি দেয়ার নামে তিন বছর আগে ৫ লাখ ৪০ হাজার টাকা নেন। বিশ্বাস স্থাপনে ব্যাংক চেক দিয়েছিলেন। চাকরি দিতে না পারলেও টাকা ফেরত দিতে তালবাহানা করেছেন।

বগুড়ার অ্যাডভোকেট জাবেদ কাউসারের কাছে একই কায়দায় ছয় লাখ, মোস্তাফিজার রহমানের কাছে ১০ লাখ, আবদুস সাত্তারের কাছে ৩ লাখসহ শতাধিক মানুষের কাছে কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন সুলতান মাহমুদ।

ধুনট উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ বলেন, চাকরি দেয়ার নামে পরিচিত, আত্মীয়-স্বজনদের কাছ থেকে কিছু টাকা নিয়েছেন। চাকুরির তদবির করছেন। কাজ না হলে টাকাও ফেরৎ দিবেন। কিন্তু রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রে চাকরি প্রার্থীদের দিয়ে তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

রূপালী ব্যাংক ধুনট শাখা ব্যবস্থাপক শাহানুল হাসান বলেন, এ পর্যন্ত সুলতান মাহমুদের স্বাক্ষরিত অর্ধ কোটি টাকার প্রায় ১৫টি চেক ডিজঅনার হয়েছে। আরও অনেক ব্যক্তি চেক নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু তার হিসাবে কোনো টাকা না থাকায় কেউ টাকা তুলতে পারেননি। চেক জালিয়াতির ব্যাপারে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবেন।

ধুনট থানার অফিসার (ওসি) ইসমাইল হোসেন বলেন, সুলতান মাহমুদ মন্ত্রী-এমপিদের নাম ভেঙে চাকরি দেয়ার নামে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। প্রতারণার শিকার তিন ব্যক্তি আদালতে মামলা করেছেন। মামলা দায়েরের পর থেকে সুলতান আত্মগোপনে ছিল।

মন্তব্য লিখুন :