নোয়াখালীতে ব্যবসায়ী হত্যায় একজনের যাবজ্জীবন

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে শহিদুল ইসলাম শিপন হত্যা মামলার তারই দোকানের কর্মচারী মো. ইমনকে (১৯) যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসাথে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে জেলা জজ আদালতের জেলা ও দায়রা জজ সালেহ উদ্দিন আহমদ এ রায় দেন।

এ সময় দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি মো. ইমন আদালতের ডকে উপস্থিত ছিলেন। তিনি কিশোরগঞ্জ জেলার করিমগঞ্জ থানাধীন পানাহার গ্রামের মো. আল আমিন মিয়ার ছেলে।

আদালত সূত্রে জানা যায়, মো. ইমন নিহত শহিদুল ইসলাম শিপনের স্থানীয় রমনির হাট বাজারে ‘মায়ের দোয়া ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কশপ’ নামক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী ছিলেন। ২০১৯ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি রাতে ইমন ঘুমন্ত অবস্থায় হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে ব্যবসায়ী শিপনকে হত্যা করে তার মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোনটি নিয়ে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ তাকে কিশোরগঞ্জ থেকে গ্রেপ্তার করে এবং মোটরসাইকেলটি কুমিল্লা থেকে উদ্ধার করে।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) গুলজার আহমেদ জুয়েল। তিনি জানান, ঘটনায় ব্যবসায়ী শিপনের বড় ভাই তৌহিদুল ইসলাম থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরবর্তীতে আদালত এ পর্যন্ত ১৭ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আসামি মো. ইমনের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বৃহস্পতিবার বিকালে এ আদেশ দেন।

তিনি আরো বলেন, আসামির বয়স ১৯ বছর হওয়ায় বয়স বিবেচনায় এনে আদালত মৃত্যুদণ্ডের পরিবর্তে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দেন।