তাইজুলের ৬ উইকেট, জিম্বাবুয়ে ২৮২

তাইজুলের ঘূর্নিতে সিলেট চেস্টের দ্বিতীয় দিনে মাত্র ৪৬ রান যোগ করতে পেরেছে জিম্বাবুয়ে। তাইজুল ইসলাম একাই নিয়েছেন ছয় উইকেট।

রবিবার (৪ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ৯টায় ২৩৬ রানে ৫ উইকেট নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করে জিম্বাবুয়ের দুই ব্যাটসম্যান পিটার মুর ও রজিস চাকবা। স্কোরবোর্ডে ২৫ রান যোগ করার পর তাইজুলের বলে শান্তর তালুবন্দি হয়ে সাজঘরে ফেরে চাকবা। আউট হওয়ার আগে এই ব্যাটসম্যান করেন ৮৫ বলে ২৮ রান। তখন জিম্বাবুয়ের স্কোর দাঁড়ায় ২৬১/৫।

এর ৮ ওভার পরে আবার তাইজুলের আঘাত। এবার শিকার উইকেটে নতুন আসা ওয়েলিংটন মাসাকাদজা। দুই ওভার পর আঘাত হানেন নাজমুল ইসলাম। এতে মুহূর্তেই জিম্বাবুয়ের ব্যাটিং অর্ডারে ধস নামে। পরে ১১৭তম ওভারে এসে টানা দুই বলে দুই উইকেট নিয়ে মাত্র ২৮২ রানে জিম্বাবুয়েকে অলআউট করে দেন তাউজুল।

এই বোলার ৩৯ ওভার ৩ বলে ১০৮ রান দিয়ে নিয়েছেন ৬ উইকেট। অপু ২৩ ওভারে ৪৯ রান দিয়ে নিয়েছেন ২ উইকেট। জিম্বাবুয়ের হয়ে সর্বোচ্চ রান করে সেন উইলিয়ামস ৮৮, পিটার মুর ৬৩ ও হ্যামিল্টন মাসাকাদজা ৫২।

এর আগে গতকাল সাদা বলের ক্রিকেটে জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করার লক্ষ্যে মাঠে নামে বাংলাদেশ। প্রথমে বল করতে নেমে ১১তম ওভারের ৪র্থ বলে ব্রায়ান চারিকে ১৩ রানে ফেরান তাইজুল ইসলাম। ৩৫ রানের মাথায় প্রথম ধাক্কা খাওয়া জিম্বাবুয়ে পরের ধাক্কা খায় ১২ রান পরেই। এবারও ঘাতক সেই তাইজুল। ১৭তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ব্রেন্ডন টেলরকে শান্তর ক্যাচ বানিয়ে সাজঘরে ফেরান ডানহাতি স্পিনার।

এরপর হ্যামিল্টন মাসাকাদজা দলের অন্যতম ভরসামান সেন উইলিয়ামসকে নিয়ে প্রাথমিক চাপটা সামাল দেন। এই দুজন ৪৭ রানের জুটি গড়লে বিপদ কিছুটা কাটে জিম্বাবুয়ের। তবে মাসাকাদজা ৩২তম ওভারে ৫২ রান করে আবু জায়েদ রাহীর শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন। এরপর সিকান্দার রাজাকে নিয়ে ৪৫ রানের একটি জুটি গড়ে দলকে এগিয়ে নেয়ার কাজটা চালান উইলিয়ামস। রাজা ১৯ রান করে অপুর শিকার হলেও উইলিয়ামস একাই খেলতে থাকেন একপ্রান্ত ধরে।

এই ব্যাটসম্যান যখন ৮৮ রান করে মাহামুদুল্লার শিকার হন তখন দারুণ অবস্থানে জিম্বাবুয়ে। ২০১ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর দিনটা পার করে দেন পিটার মুর ও রজিস চাকবা। মুর অপরাজিত থাকেন ৩৭ ও চাকবা ২০ রানে।

মন্তব্য লিখুন :