জেতার জন্য টাইগারদের চাই ৩২১

প্রথম ইনিংসে ছয় উইকেট নেওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন তাইজুল ইসলাম। পাশাপাশি মেহেদি মিরাজের তিনটি ও নাজমুল ইসলামের জোড়া উইকেটের সুবাদে জিম্বাবুয়েকে ১৮১ রানে অলআউট করেছে বাংলাদেশ। ম্যাচ জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন এখন ৩২১ রান।

সোমবার (৫ নভেম্বর) সিলেট টেস্টের তৃতীয় দিনের শুরুতেই আঘাত হানেন মেহেদি মিরাজ। দলীয় ১৯ রানের মাথায় ৪ রান করা ব্রায়ান চারিকে ফেরান তিনি। এরপর ৪৭ রানের মাথায় আক্রমণাত্মক হয়ে খেলতে শুরু করা ব্রেন্ডন টেলরকে ৪৭ রানের মাথায় ফেরান তাইজুল ইসলাম।

দ্রুত দুই ব্যাটসম্যানকে ফেরানো গেলেও তৃতীয় উইকেটে সেন উইলিয়ামসকে নিয়ে বড় সংগ্রহের পথেই দলকে নিয়ে যাচ্ছিল হ্যামিল্টন মাসাকাদজা। এই দু’জন মিলে ৫০ রানের জুটি গড়ে ফেলেন। তবে ৩৭তম ওভারে এসে মেহেদি মিরাজ সরাসরি মাসাকাদজাকে বোল্ড করলে ভাঙে এই জুটি। এর পরের গল্পটা শুধুই তাইজুলের। ৪২তম ওভারের পঞ্চম বলে তুলে নেন জিম্বাবুয়ের প্রথম ইনিংসের নায়ক সেন উইলিয়ামসকে। পরের বলেই লিটন দাসের ক্যাচ বানিয়ে ০ রানে সাজঘরে ফেরান পিটার মুরকে। এতে তার সামনে চলে আসে হ্যাটট্রিকের সম্ভাবনা।

১ ওভার পর তাইজুল আবার বলে আসলে সিকান্দার রাজা প্রথম দুই বল ঠেকিয়ে দেন। তবে তৃতীয় বলটি আর তিনি ডিফেন্স করতে পারেননি। সোজা বোল্ড হয়ে ফেরেন সাজঘরে। এতেই এক টেস্টে ১০ উইকেট নেওয়ার কীর্তি গড়ে ফেলেন তাইজুল।

এরপর রজিস চাকবা ও ওয়েলিংটন মাসাকাদজা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করলেও বাধ সাধেন মিরাজ। মাসাকাদজাকে এলবিডব্লিউর ফাঁদে ফেলেন তিনি। তখন জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৭ উইকেটে ১৬৫। স্কোরবোর্ডে ৭ রান যোগ করার পর অপুর শিকার হন চাকবা। একই ওভারে ব্রেন্ডন মাভুতাকে ফিরিয়ে দেন অপু। দুই ওভারপর বোলিংয়ে ফিরে কাইল জারভিসকে আউট করে নিজের ৫ উইকেট পূরণ করেন তাইজুল। এতেই ১৮১ রানে শেষ হয় জিম্বাবুয়াইনদের ইনিংস।

এর আগে হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, সেন উইলিয়ামস ও পিটার মুরের ব্যাটে ভর করে প্রথম ইনিংসে ২৮২ রান তুলে জিম্বাবুয়ে। বাংলাদেশের হয়ে এদিন একাই ৬ উইকেট নেন তাইজুল ইসলাম। জবাবে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে মাত্র ১৪৩ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ।

মন্তব্য লিখুন :