টাইগার ব্যাটসম্যানদের আমলনামা

সিলেট টেস্টে বোলারদের বিশেষ করে তিন স্পিনারের দারুণ পারফর্মের পরও ব্যাটিং ব্যর্থতায় জিম্বাবুয়ের কাছে লজ্জাজনকভাবে হেরেছে বাংলাদেশ। সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল না থাকায় এ টেস্টটা ছিল বাংলাদেশের জন্য বিশেষ কিছু। পরীক্ষা ছিল তরুণদের জন্য। তবে টাইগার ব্যাটসম্যানসরা সে পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পেরেছেন কি না সেটা আপনারাই বিবেচনা করে নিন পারফর্ম দেখে।

ওপেনার লিটন দাস প্রথম ইনিংসে ২৫ বলে করেছেন ৯ আর দ্বিতীয় ইনিংসে ৭৫ বলে ২৩ রান। তার গড় ১৬.০০।

আরেক ওপেনার ইমরুল কায়েস প্রথম ইনিংসে ১৩ বলে করেছেন ৫ আর দ্বিতীয় ইনিংসে ১০৩ বলে ৪৩ রান।

ওয়ান ডাউনে খেলা মুমিনুল হক প্রথম ইনিংসে ৩৮ বলে ১১ আর দ্বিতীয় ইনিংসে ১৩ বলে ৯ রান করেন। তার গড় ১১.০০।

প্রথম ইনিংসে চারে নেমে নাজমুল ইসলাম করেন ৫ বলে ৫ আর দ্বিতীয় ইনিংসে পাঁচ নম্বরে নেমে ৩২ বলে ১৩। তার গড় ৯.০০।

প্রথম ইনিংসে পাঁচে নাম মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ ২ বলে ০ আর দ্বিতীয় ইনিংসে চারে নেমে করেন ৪৫ বলে ১৬ রান। তার গড় ৮.০০।

প্রথম ইনিংসে মুশফিকুর রহিম করেন ৫৪ বলে ৩১ আর দ্বিতীয় ইনিংসে ৪৪ বলে ১৩। তার গড় ২২.০০।

সাতে নেমে প্রথম ইনিংসে আরিফুল হক ৯৬ বলে ৪১ রান করে অপরাজিত থাকেন। দ্বিতী ইনিংসে ৪৭ বলে ৩৮ রান করে সবার শেষে আউট হন তিনি। তার গড় ৭৯.০০।

আটে নেমে মেহেদি হাসান মিরাজ প্রথম ইনিংসে করেন ৩৩ বলে ২১ আর দ্বিতীয় ইনিংসে ১৫ বলে ৭। তার গড় ১৪.০০।

এই হলো বাংলাদেশের শীর্ষ আট মানে ব্যাটসম্যানদের অবস্থা। বোঝাই যাচ্ছে এক আরিপুল হক ছাগা সবাই ব্যর্থ। বিশেস করে বলতে হবে লিটন দাস, মাহামুদুল্লাহ রিয়াদ ও শান্তর নাম। এই তিন ব্যাটসম্যান দুই ইনিংসেই পুরোপুরি ব্যর্থ।

নিজেদের মাঠে যদি টাইগার ব্যাটসম্যানদের এমন অবস্থা হয় তাহলে পরের ম্যাচেও খারাপ কিছুই অপেক্ষা করছে বাংলাদেশের জন্য। এখন যদি টাইগাররা ভুল থেকে না শিখে তাহলে বেশ অস্বস্তিতেই পড়তে হবে গোটা দলকে। হারাতে হবে মূল্যবান কিছু পয়েন্ট।

মন্তব্য লিখুন :