সহজ জয়ে পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে রংপুর

মাশরাফি বিন মুর্তজা ও নাজমুল ইসলাম অপুর দুর্দান্ত বোলিংয়ের পর মেহেদি মারুফের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে কুমিল্লার বিরুদ্ধে ৯ উইকেটের দারুণ জয় পেয়েছে রংপুর রাইডার্স। এই জয়ে তারা পয়েন্ট টেবিলের দুইয়ে উঠে এসেছে। শীর্ষে আছে ঢাকা ডায়নামাইটস।

মঙ্গলবার (৮ জানুয়ারি) প্রথমে ব্যাট করতে নেমে সবকটি উইকেট হারিয়ে মাত্র ৬৩ রান তুলতে পারে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। জবাবে ৮ ওভার ও ৯ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় রংপুর।

দীর্ঘ এক ব্যাটিং লাইনআপ নিয়ে খেলতে নেমেছিল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। তাদের একাদশে মোট নয়জন ছিল যারা নিয়মিত ব্যাট করেন। তবে মাশরাফি বির মুর্তজার তাণ্ডবে সেই ৯ ব্যাটসম্যান নিয়েও তারা অলআউট হয়েছে মাত্র ৬৩ রানে।

প্রথমে ব্যাট করতে নেমে কুমিল্লার দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও এভিন লুইস শুরুটা করেন ধীরগতিতে। প্রচেষ্টা ছিল ক্রিজে সেট হয়ে মারার। তবে তাতে বাধ সাধেন মাশরাফি।

অধিনায়ক তৃতীয় ওভারে এসে সাজঘরে ফেরান ১০ বলে ৪ রান করা তামিম ইকবালকে। নিজের তৃতীয় ওভারে এসে এই তারকা রবি বোপারার ক্যাচে পরিণত করেন ইমরুল কায়েসকে।

একই ওভারে নাজমুল ইসলামের ক্যাচ বানান এভিন লুইসকে। আর তাতেই তাসের মতো ভেঙে পড়ে কুমিল্লার ব্যাটিং লাইনআপ। এরপর দ্রুত শোয়েব মালিক বিদায় নিলে কুমিল্লার স্কোর দাঁড়ায় ১৮-৪।

তবে এতেও খুশি হতে পারেননি মাশরাফি। নিজের শেষ ওভারে এসে ফরহাদ রেজার ক্যাচ বানিয়ে ০ রানে সাজঘরের পথ দেখান স্টিভ স্মিথকে। তখন ছিল সপ্তম ওভার। রান আটকে ছিল ১৮ তেই। এরপর আফ্রিদি এসে একটি চার ও একটি ডাবল নেন। সেই সাথে এনামুলও করেন ২ রান। যাতে একটু আশা জন্মাছিল সম্মানজনক স্কোরের।

তবে নবম ওভারে এসে এনামুলকে ফিরিয়ে সেই আশাও ফিকে করে দেন ফরহাদ রেজা। এরপর শুধু উইকেটের পতনই দেখেছে মিরপুরের দর্শকরা। মাজে অবশ্য নান্দনিক কয়েকটি শট খেলেছেন আফ্রিদি। মূলত তার ২৫ রানের ইনিংসের কারণেই ৬০ এর কোটা পার করেছে কুমিল্লা।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দেখেশুনে খেলতে থাকে রংপুর। তবে আবু হায়দারের দারুণ এক বলে ১ রান করেই বিদায় নিতে হয় ক্রিস গেইলকে। এরপর অবশ্য আর কোনো অঘটন ঘটতে দেননি মেহেদি মারুফ ও রাইলি রসো। এই দুজন অর্ধশত রানের জুটি গড়ে দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেন। যদিও এই ৬৩ রান করতেই তাদের খেলতে হয়েছে ১২ ওভার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর: কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৬৩-১০ (১৬.২)। শাহিদ আফ্রিদি ২৫ (১৮)। মাশরাফি ৪-১১-৪. নাজমুল ইসলাম অপু ৩.২-২০-৩।

রংপুর ৬৭-১ (১২)। মেহেদি মারুফ ৩৬ (৩৯)।

মন্তব্য লিখুন :