দ্বদশীর মরণে-আমরণে

তিথির দ্বাদশে শুভ্র হাসিতে
দুনিয়া মাতাও। কি আনন্দ পাও-
আজও জানিনি; বুঝিনি আজো।
দায় পড়েছে সে বোঝাতে!


নদীর গভীরে প্রণয় শর্তে, ঔদ্ব্যত্যতায়
গা হেলানো নদীর প্রহরে, স্রোতের সাথে তাল হারাতে,
কবিকুলে প্রেমের মাতম, প্রকৃতি দেবীর কোল ঘেষে যায়;
মাদকী অপার সৌর্য, সে কি আনন্দ সুখের!


বরণ করা ফুলের অর্ঘ্য, ঠিক-
শাহজাহান যেন মমতাজ তরে।
পসারে প্রেমের ডালি সাজিয়ে; গভীরে কপট লম্পটতা,
প্রেমাস্পদে ঋদ্ধ তোমার সিদ্ধতা ওই পাগলীমেতে!


শব্দকুলের প্রাণ ফিরে পাওয়া; যেন-
মরুর দগ্ধ তৃণের শেকড়ে!
অধর ছুঁয়ে যায় মরুর হাওয়ায়, তোমার-
বীণার তারে ভৈরবী সুর। বেলা ভাঙা ঘুমে ও বেঘোরে,
কি পাও তুমি মরণে-আমরণে!


কবি: শারমীন সুলতানা

মন্তব্য লিখুন :