একুশে পদকপ্রাপ্ত সমাজকর্মী ঝর্ণা ধারা চৌধুরী আর নেই

একুশে পদক, রোকেয়া পদক ও ভারতের পদ্মশ্রী পুরস্কার পাওয়া বাংলাদেশি সমাজকর্মী ও গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের সচিব ঝর্ণা ধারা চৌধুরী আর নেই। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮০ বছর। তিনি বার্ধক্যজনিত নানা সমস্যায় ভুগছিলেন।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে তিনি রাজধানী ঢাকার স্কয়ার হসপিটালের সিসি ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।

ঝর্ণা ধারা চৌধুরী অনেক দিন ধরে নোয়াখালীর সোনাইমুড়ী উপজেলার জয়াগ গ্রামে প্রতিষ্ঠিত গান্ধী আশ্রম ট্রাস্টের সচিবের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন।

সেবামূলক এই প্রতিষ্ঠানের পরিচালক রাহা নব কুমার গণমাধ্যমকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ঝর্ণা ধারা চৌধুরীর উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ বার্ধক্যজনিত নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছেন। পরে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হলে তাকে রাজধানীতে নেওয়া হয়। দীর্ঘদিন সেখানে চিকিৎসা শেষে বৃহস্পতিবার ভোরে তিনি আমাদের ছেড়ে চলে যান।

ঝর্ণাধারা ১৯৩৮ সালের ১৫ অক্টোবর লক্ষীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। মানব সেবায় নিয়োজিত এই নারী সংসার জীবনে যাননি। গান্ধী আশ্রমের সমাজকর্মী হিসেবে ছুটে চলেন গ্রাম থেকে গ্রামে। তার বাবার নাম গান্ধীয়ান প্রথম চৌধুরী ও মায়ের নাম আশালতা চৌধুরী। তিনি ১১ ভাইবোনের মধ্যে দশম।

সমাজসেবক হিসেবে তিনি আন্তর্জাতিক বাজাজ পুরস্কার ১৯৯৮, শান্তি পুরস্কার ২০০০, অনন্যা ২০০১, দুর্বার নেটওয়ার্ক পুরস্কার ২০০৩, কীর্তিমতি নারী পুরস্কার ২০১০, একুশে পদক ২০১৫, বেগম রোকেয়া পদক ২০১৩, সাদা মনের মানুষ পদক ২০০৭ এবং বিভিন্ন জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক পদক পেয়েছেন। এছাড়া ঝর্ণাধারা চৌধুরী ২০১৩ সালে ভারতের রাষ্ট্রীয় বেসামরিক সম্মান পদ্মশ্রী খেতাবেও ভূষিত হন।

মন্তব্য লিখুন :