ত্বকে ব্রণ-দাগের কারণ, বাঁচবেন যেভাবে

মুখ ও দেহের বিভিন্ন অংশে ব়্যাশ বা ফুসকুরির সমস্যায় ভোগেন অনেকেই। এটা এমনই একটি সমস্যা যা আপনার চেহারাকে নষ্ট তো করেই সেই সাথে শরীরের তৈরি করে বিভিন্ন রোগ। এই ব্রণ-দাগ হতে পারে নির্দিষ্ট কিছু কারণে।

জেনে নিন কি সেই কারণগুলো আর কিভাবে তা প্রতিরোধ করবেন।

সানস্ক্রিন ছাড়া রোদে ঘোরা – রোদের প্রখর তাপ সবার শরীরের জন্যই ক্ষতিকর। বিশেষ করে সূর্যের আল্টা ভায়োলেট রশ্মী শরীরে সরাসরি লাগলে মারাত্মক ক্ষতি করে। তাছাড়া প্রখর রোদ আপনার মুখে টান তৈরির পাশাপাশি সারা দেহে ও মুখে ব়্যাশের সৃষ্টি করে। এই সমস্যা থেকে বাঁচতে সানস্ক্রিন ছাড়া ভুল করেও বাড়ির বাইরে পা রাখবেন না। রোদে বেরোনোর অন্তত আধ ঘণ্টা আগে মুখে ও দেহের খোলা অংশগুলিতে সানস্ক্রিন মেখে নিন।

আঁটসাট পোশাক – স্কিন ফিট পোশাক আজকাল ফ্যাশন হয়ে গেছে। তবে আঁটসাট পোশাক আপনার ত্বকের কতটা ক্ষতি করে সেটা জানেন? অনেকক্ষণ টাইট পোশাক পরে থাকলে কোমর, হাত, গলার মতো বিভিন্ন অংশে থাকা বসাতে পারে ব়্যাশ। সেই ফুসকুরি চুলকালে আরও বিপদে পড়বেন৷ কারণ হাতের নখ থেকেও ইনফেকশন ছড়াতে পারে৷ তাই গরমে খুব বেশি আঁটসাট পোশাক এড়িয়ে চলুন৷ ত্বক সুস্থ থাকবে।

ফুসকুরি চুলকানো – মুখে বা শরীরের যেসব অংশে ব়্যাশ হয়েছে সেই অংশ অনেক সময় জেনে, আবার কখনও অজান্তেই চুলকে ফেলেন। বেশ খানিকক্ষণ সেসব জায়গা চুলকালে জায়গাটি লাল হয়ে যায়৷ এমনকী রক্তও বেরিয়ে যেতে পারে৷ এমনটা হলে জায়গাগুলি ঠান্ডা পানিতে ভালো করে ধুয়ে অ্যান্টি-বায়োটিক মলম লাগান৷ অ্যান্টি-ফাঙ্গাল পাউডারও ব্যবহার করতে পারেন৷

ঘাম – ঘাম থেকে শরীরের ব্যাশ পড়ার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি। এই ঘাম থেকেই তৈরি হয় ছোট ছোট বিভিন্ন গোটার। আর পরে তা ইনফেকশন হয়ে তৈরি হয় ব্রণ। তাই শরীর ঘামালেই সাথে সাথে মুছে ফেলুন। ভুল করেও ঘামাক্রান্ত শরীর নিয়ে ফ্যানের নিচে বসবেন না বা গোসল করবেন না।

গরমে ওয়ার্ক-আউট – গরমের মধ্যে শরীরচর্চা করলেও হতে পারে ব়্যাশ৷ লালচে রঙের ব্রণর মতোই দেখতে এই ফুসকরি৷ খুব রোদে মোটরবাইকে ঘুরলে বা হাঁটলেও শরীরে দেখা দিতে পারে এই ধরনের ব়্যাশ৷ ত্বকের এই রোগ থেকে নিজেকে বাঁচাতে চেষ্টা করুন ছায়া দিয়ে হাঁটার৷

ধুলাবালি – শরীরের অর্ধেক রোগ বাসা বাধার কারণ ধুলাবালি। হাঁচি, কাশি এমনকি ব্রণও তৈরি হয় এই ধুলাবালি থেকে। তাই যখনই বাইরে থেকে আসবেন সাথে সাথে মুখ-শরীর ধুয়ে নেবেন।

মন্তব্য লিখুন :