ইফতারে বাড়তি স্বাদ যোগ করতে চিকেন সমুচা

ইফতারে অনেকে ভাজাপোড়া খেতে পছন্দ করেন। যদিও এ ধরণের খাবার বেশি খেলে বদহজমের সম্ভাবনা থাকে। তারপরও খেতে ইচ্ছে করলে দোকানের খাবার না খেয়ে বাড়িয়েই বানাতে পারেন স্বাস্থ্যকর কিছু আইটেম। সেক্ষেত্রে চিকেন সমুচা ইফতারে বাড়তি স্বাদ যোগ করবে। 

মুরগীর রান্নার জন্য যেসব উপকারণ লাগবে : ২ টা মুরগীর বুকের মাংস ছোট করে কাটা, মরিচের গুড়া দেড় চামচ, হলুদের গুড়া আধা চামচ, গরম মসলার গুড়া ১ চামচ, জিরার গুড়া ২ চামচ, গোল মরিচের গুড়া আধা চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল প্রয়োজন মতো, ৩ টা পেয়াজ কুচি করে কাটা,  আদা-রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ , কাঁচা মরিচ কাটা ২টি 

ডো তৈরির জন্য যা লাগবে : ময়দা ২ কাপ, লবণ সামান্য, ময়দা নরম করার জন্য পানি, ১ ডা ডিম, তেল প্রয়োজন মতো 

প্রস্তত প্রণালী : মুরগী রান্নার জন্য নেওয়া গুড়া মসলা মাখিয়ে মুরগীটা হালকা আঁচে রান্না করুন। মুরগী সেদ্ধ হওয়ার পর একটা কাঠের চামচ দিয়ে মাংসগুলো পিষে একটা পাত্রে রেখে দিন। এবার আরেকটি কড়াইয়ে তেল দিয়ে তাতে পেয়াজ কুচি ও লবণ মেশান।কিছুক্ষণ রান্না করার পর এতে আদা-রসুন বাটা, কাঁচা মরিচ যোগ করুন। এখন মিশ্রণটিতে মুরগীর মাংসগুলো দিয়ে কিছুক্ষণ রান্না করুন। একটা বড় গামলায় ময়দায় লবণ ও পানি মিশিয়ে ভালভাবে মেখে ডো তৈরি করে কয়েক মিনিট রেখে দিন। ওই ডো দিয়ে আটটা বল তৈরি করুন। এখন বলগুলো রুটির মতো বেলে বড় করুন। এখন এতে রান্না মাংসগুলো দিয়ে তিন কোণা করে সমুচার আকৃতি করে কোণাগুলোর মুখ আটকিয়ে দিন। একটা বাটিতে ডিমটা ফেটে নিন। এখন একটা কড়াইয়ে তেল দিয়ে ডিম মাখিয়ে সমুচাগুলো ভেজে ফেলুন। সমুচাগুলো বাদামী রঙ না হওয়া পর্যন্ত অল্প আঁচে ভাজতে থাকুন। পরিবেশনের সময় টমেটোর সস দিয়ে খেতে পারেন। 

মন্তব্য লিখুন :