জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে গ্রেপ্তারের দাবিতে শাহবাগে বিক্ষোভ

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালকে বিতর্কিত করা, সেনাবাহিনীর প্রধান সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করাসহ একাধিক অভিযোগে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে অবিলম্বে গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা।

শুক্রবার (৯ নভেম্বর) বিকালে শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে 'গৌরব’৭১' এর আয়োজনে দাবি আদায়ে একটি বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

সমাবেশে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের অন্যতম শিল্পী মনরঞ্জন ঘোষাল বলেন, ১৯৭১ সাল পর্যন্ত ডা. জাফরুল্লাহ ভালো মানুষ ছিলেন। '৭১ এর পরে তিনি বাংলাদেশের জন্য একজন ঘৃণিত মানুষ। আজকে তিনি মেয়েদের দিয়ে, মৌলবাদদের দিয়ে এদেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। অবিলম্বে তাকে এ মুক্তিযুদ্ধের দেশে অবাঞ্চিত করা উচিৎ।

তিনি আরও বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালকে বিতর্কিত করা, সেনাবাহিনীর প্রধান সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য দিয়ে জাতিকে বিভ্রান্ত করার দায়ে তার বিরুদ্ধে সাইবার ২০(৫) ও ২০(৯) ধারা অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া উচিৎ।

দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকার অভিযোগে ডা. জাফরুল্লাহর বিরুদ্ধে মামলা করতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রতি আহবান জানান মনরঞ্জন ঘোষাল।

গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম সংগঠক বাপ্পাদিত্য বসু বলেন, ডা. জাফরুল্লাহ নব্য রাজাকার। তিনি মুক্তিযুদ্ধের বিরুদ্ধে, এদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র অব্যাহত রেখেছেন।

গণমাধ্যমের উদ্দ্যেশে তিনি বলেন, 'আপনারা বিতর্কিত ডা. জাফরুল্লাহ কেন বার বার মিডিয়ায় কথা বলার সুযোগ করে দিচ্ছেন? আপনাদের এ ব্যাপারে সচেতন হওয়া উচিৎ।'

জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট প্রসঙ্গে বাপ্পাদিত্য বসু বলেন, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অনেকে নিজেদের মুক্তিযোদ্ধা দাবি করে। তাহলে কেন আপনারা মুক্তিযুদ্ধবিরোধী বিএনপি-জামায়াতের সাথে ঐক্য করলেন?

গৌরব’৭১ এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন বলেন, আজকে ডা. জাফরুল্লাহ দেশকে বিতর্কিত করতে, সেনাবাহিনীকে বিতর্কিত করতে ষড়যন্ত্র করেই চলেছেন। ডা. জাফরুল্লাহকে অনতিবিলম্বে গ্রেফতার করুন। আর তা না হলে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সংগঠনগুলো রাজপথে নামবে।

ডা. জাফরুল্লাহকে শহীদ মিনারসহ মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজরিত কোনো স্থানে ঢুকলে প্রতিহত করার আহবান জানান এফ এম শাহীন।

নারীনেত্রী নুরজাহান আক্তার সবুজা বলেন, স্বাধীনতার ৪৭ বছর পরেও পাকিস্তানি প্রেতাত্মরা এখনো বাংলাদেশে থেকে ষড়যন্ত্র করছেন।আজকে দেশ ২ ভাগে বিভক্ত।একটি পক্ষ হলো,স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি।আরেকটি পক্ষ হলো স্বাধীনতা বিরোধী রাজাকাররা।আজকে আমরা যারা স্বাধীনতার পক্ষের শক্তি আছি আমাদেরকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজাকার ডা. জাফরুল্লাহদের প্রতিহত করতে হবে।

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন মুক্তিযাদ্ধা সন্তান সমন্বয় পরিষদের সভাপতি মো. রাহান, মুক্তিযোদ্ধা রুহুল আমিন মজুমদার, 'আমরা মুক্তিযাদ্ধার সন্তান'র সভাপতি মনিরুজ্জামান মনি, সাতক্ষীরা-১ আসনের সংসদ সদস্য মোস্তফা লুৎফুল্লাহ প্রমুখ।

সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন গৌরব’৭১ এর সভাপতি এস এম মনিরুল ইসলাম মনি এবং সঞ্চালনা করেন সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন খান।

মন্তব্য লিখুন :