জনবল নিয়োগ দেবে ফায়ার সার্ভিস

দেশের বিভিন্ন উপজেলা সদর ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নির্মাণাধীন ৪০টি ফায়ার স্টেশনের জন্য বিভিন্ন পদে এক হাজার ৯০ জনের নিয়োগের অনুমোদন দিয়েছে প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটি।

সচিব কমিটির সভায় এ বিষয়টি অনুমোদন দেওয়া হয় বলে নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্টরা। এর আগে বিভিন্ন সময়ে স্বরাষ্ট্র, জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন পায় বিষয়টি।

জানা যায়, ‘এ’ ক্যাটাগরির একটি, ‘বি’ ক্যাটাগরির ৩৭টি এবং স্থল ও নদীর জন্য ‘বি’ ক্যাটাগরির দু’টি ফায়ার স্টেশনসহ মোট ৪০টি ফায়ার স্টেশনের বিপরীতে এক হাজার ৯০টি পদ সৃষ্টির জন্য প্রস্তাবনায় বলা হয়। যাচাই-বাছাই শেষে মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগ থেকে প্রস্তাবনাটি একই বছরের ২৩ নভেম্বর জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। এ বিষয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় গত বছরের ৩০ এপ্রিল ও অর্থ বিভাগের বাস্তবায়ন অনুবিভাগ গত বছরের (২০১৮) ১২ নভেম্বর এক হাজার ৯০টি পদের বেতন গ্রেড ও মাসিক ন্যূনতম সেবামূল্য নির্ধারণে সম্মতি দিয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা বিভাগে পাঠায়।

জনবল নিয়োগের অনুমোদন দেওয়া ফায়ার স্টেশনগুলো হচ্ছে— গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর ও বিজয়নগর, বগুড়ার আদমদিঘী, জয়পুরহাটের ক্ষেতলাল, মাগুরার শালিখা, মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া, কক্সবাজারের কুতুবদিয়া, পাবনার সাথিয়া, পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জ, নড়াইলের কালিয়া, মেহেরপুরের মুজিবনগর, বাগেরহাটের কচুয়া, ফকিরহাট, রামপাল ও চিতলমারী, মাদারীপুরের কালকিনি, সাতক্ষীরার দেবহাটা, কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়া ও হোসেনপুর, রাঙ্গামাটির রাজস্থলী, খাগড়াছড়ির পানছড়ি, যশোরের কেশবপুর, খুলনার বাটিয়াঘাটা ও দাকোপ, টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার, ফরিদপুরের চরভদ্রাসন, নওগাঁর ধামুইরহাট, কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারি, ফুলবাড়ি ও রাজারহাট, চাঁদপুরের মতলব (উত্তর), চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ, কুমিল্লার মেঘনা, মনোহরগঞ্জ ও তিতাস এবং সিলেটের কানাইঘাট। এছাড়া স্থল ও নদী নামে ‘বি’ ক্যাটাগরির আরও দুটি ফায়ার স্টেশন এবং ‘এ’ ক্যাটাগরির একটি স্টেশনসহ ৪০টি ফায়ার স্টেশনের জন্য জনবল নিয়োগ দেওয়া হয়।

মন্তব্য লিখুন :