যার বিরুদ্ধে অভিযোগ, সেই তদন্ত কমিটির প্রধান

ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ছাত্রী নুসরাত জাহার রাফিকে হাত-পা বেঁধে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পি কে এনামুল করিমের বিরুদ্ধে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ এনেছেন নুসরাতের মা। নুসরাতকে হত্যার ঘটনায় প্রশাসনের কোনো ভুলত্রুটি ছিল কি না, খতিয়ে দেখতে যে কমিটি গঠন করা হয়েছে, পি কে এনামুল করিম ওই কমিটির প্রধান।

স্থানীয় সূত্রে জানাগেছে, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পি কে এনামুল করিম সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি। ওই মাদ্রাসারই অধ্যক্ষ ছিলেন সিরাজ উদ দৌলা। এর আগেও মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানি ও অর্থ তছরুপের অভিযোগ ওঠে। এই অভিযোগ নিয়ম অনুযায়ী অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেটকে লিখিতভাবে জানানো হয়েছিল। তবে তিনি ব্যবস্থা নেননি।

পুলিশ সদর দপ্তরের তদন্ত কমিটির কাছে নুসরাতের সঙ্গে ঘটে যাওয়া নির্মম দৃশ্যপটের আদ্যোপান্ত তুলেন ধরেন তার মা শিরিনা আক্তার জানান, সিরাজের কুকর্মের বিচার চাইতে গেলে মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও ফেনীর এডিশনাল ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) পিকেএম এনামুল করিম তাকে জানিয়েছিলেন, 'আপনারা যে মামলা করেছেন তা প্রমাণ করতে না পারলে অধ্যক্ষের লোকজন আপনাদের বিরুদ্ধে মামলা করবে।' এডিএম নুসরাতকে এও বলেছিলেন, 'প্রিন্সিপাল খারাপ সবাই জানে। তুমি তার কাছে গেছ কেন। যখন গেছ তখন হজম করতে পারলে না কেন।

শিরিনা আক্তার আরও বলেন, অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানীর মামলার করার পরদিন ২৮ মার্চ নুসরাতের জবানবন্দি রেকর্ড করেন ম্যাজিস্ট্রেট। আদালতে যাওয়ার সময় তারা পথে দেখেন, অধ্যক্ষের পক্ষে শিক্ষকসহ অন্যরা মানববন্ধন করছে। এই দৃশ্য দেখে নুসরাত তার মাকে আফসোস করে বলেন, 'ঘটনার পর মাদ্রাসার শিক্ষক আফসার ও হারুন হুজুরকে জানিয়েছি, তাদের বাবার মতো শ্রদ্ধা করি। অথচ তারাই অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন করছে।' এসব দেখে নুসরাত মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়েন। আদালত থেকে ফেরার সময় নিরাপত্তাহীনতা অনুভব করলে এসআই ইকবাল তাদের বাসা পর্যন্ত পৌঁছে দেন।

তিনি বলেন, ৪ এপ্রিল সকাল আনুমানিক ১১টার দিকে মেয়ে নুসরাত ও ছেলে নোমানকে নিয়ে মাদ্রাসার পরিচালনা কমিটির সভাপতি পিকেএম এনামুল করিমের অফিসে যান শিরিনা। সিরাজের বিরুদ্ধে অভিযোগটি জানাতে শুরু করলে পরিচালনা কমিটির সভাপতি বলেন, 'এখন কেন এসেছেন? আপনারা তো মামলা করে ফেলেছেন। মামলা করার আগে এলে দেখতাম কী করা যায়।' তখন নুসরাত তাকে বলেন, 'আপনি আমার বাবার মতো। আপনি আমার কথাগুলো শুনুন।' এর উত্তরে এনামুল বলেন, 'তোমার বাবাকে মাদ্রাসায় বসানোর জন্য এ রকম নাটক সাজিয়েছ।' পরিচালনা কমিটির সভাপতির এমন বক্তব্য শোনার পর মর্মাহত হয়ে বাসায় ফেরত যায় নুসরাতের পরিবার।

নুসরাতের মা আরও বলেন, ঘটনার দিন ৬ এপ্রিল আনুমানিক সকাল ৯টার দিকে ভাই নোমানকে নিয়ে পরীক্ষার হলের দিকে রওনা হন নুসরাত। বোনকে পরীক্ষার হলে ঢোকানোর পর মাকে ফোন করে নিশ্চিত করেছিলেন তিনি। ওই দিনই সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নোমান তার মাকে ফোন করে জানান, নুসরাতের গায়ে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। জামা-কাপড় নিয়ে যেতে বলেন। ফেনী সদর হাসপাতালে গিয়ে নুসরাতকে ওই অবস্থায় দেখেন তিনি। নুসরাত তখন তার গায়ে ওড়না জড়িয়ে দিতে বলেন মাকে।

এ বিষয়ে কথা বলতে ফেনীর অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট পি কে এনামুল করিমের মোবাইলে একাধিকবার ফোন দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

মন্তব্য লিখুন :