ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে ৫৩৬ কোটি ৬১ লাখ টাকার ক্ষতি

ঘূর্ণিঝড় ফণীর আঘাতে বাংলাদেশের মোট ৫৩৬ কোটি ৬১ লাখ ২০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. শাহ কামাল। 

বৃহস্পতিবার (৯ মে) সচিবালয়ে ঘূর্ণিঝড় ফণীর প্রভাবে সৃষ্ট ক্ষয়ক্ষতি নির্ধারণ ও পুনর্বাসন পরিকল্পনা প্রণয়নের লক্ষ্যে আয়োজিত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে তিনি এ তথ্য জানান।

শাহ কামাল বলেন, ঘূর্ণিঝড়ে ঘরবাড়ির ক্ষতি হয়েছে ৭৮ কোটি ১৪ লাখ ২০ হাজার টাকার। বাঁধের ক্ষতি হয়েছে ২৫১ কোটি টাকার। স্থানীয় সরকার বিভাগের ২৪১ কিলোমিটার রাস্তার মেরামতে খরচ হবে ১৬১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। এ ছাড়া ৩৬টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে, সেখানে মাছের ক্ষতি হয়েছে ২ কোটি ৮৪ লাখ টাকার। বন ও পরিবেশের ক্ষতি হয়েছে ৫ কোটি টাকার। কৃষি বিভাগের ক্ষতি হয়েছে ৩৮ কোটি টাকার।

সভায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান বলেন, ঘূর্ণিঝড় ফণীর কারণে কী পরিমাণ ক্ষতি হয়েছে তা নিরূপণসহ পুনর্বাসনের পরিকল্পনা তৈরি করে বৃহস্পতিবারের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ফণীর কারণে ৩৬টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এছাড়া নেত্রকোণায় হাওরের যে বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল পানিসম্পদ মন্ত্রণালয় তা মেরামত করেছে। এ ছাড়া লক্ষ্মীপুরে ৩৫টি বিদ্যালয় ঘূর্ণিঝড়ে আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। যাচাই-বাছাই করে সেগুলো সংস্কারের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

ফণীর তাণ্ডবে বরগুনায় ২ জন, ভোলা, নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুরে একজন করে মোট পাঁচজন নিহত এবং ৬৩ জন আহত হয়েছেন বলে জানান ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী।

ঘূর্ণিঝড় ফণী ভারতের ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ হয়ে গত ৪ মে সকালে কিছুটা দুর্বল অবস্থায় খুলনা-সাতক্ষীরা অঞ্চল দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করে। ঢাকা-ফরিদপুর অঞ্চল পেরিয়ে এটি ওইদিন সন্ধ্যা নাগাদ লঘুচাপে পরিণত হয়।

মন্তব্য লিখুন :