নুসরাত হত্যা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে: আইনমন্ত্রী

মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত হত্যা মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করা হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন।

রবিবার (১৬ জুন) রাজধানীর বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পাবলিক প্রসিকিউটরদের তিন দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ কর্মশালায় আইনমন্ত্রী এ কথা বলেন।

আনিসুল হক বলেন, নারীর মর্যাদা ও অধিকার রক্ষায় বাংলাদেশের সংবিধান পুরুষের সঙ্গে নারীর সম-অধিকার দিলেও জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া নারীরা প্রায় প্রতিনিয়ত পারিবারিক ও সামাজিকভাবে বঞ্চনা ও নির্যাতনের শিকার হন। আর এই নারী নির্যাতন হচ্ছে আমাদের কাঙ্ক্ষিত জাতীয় উন্নয়নের পথে সবচেয়ে বড় বাধা। তাই প্রথমবার সরকার গঠন করেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার এই বাধা দূর করার জন্য বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছিল। যার মধ্যে অন্যতম পদক্ষেপ ছিল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের আধুনিকায়ন।

আইনমন্ত্রী বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল স্থাপনের মাধ্যমে বিচারপ্রার্থী জনগণের মনে নতুন করে আশা জেগেছে যে, তারা স্বল্প সময়ে, স্বল্প ব্যয়ে ও সহজে ন্যায়বিচার পাবেন। আমার বিশ্বাস, সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতায় আমরা তাদের এই নতুন আশা পূরণ করতে সক্ষম হব।

তিনি বলেন, আমাদের মামলাজট কমিয়ে অবশ্যই গ্রহণযোগ্য মাত্রায় আনতে হবে এবং এটিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিতে হবে। আমরা কোনো বিচারপ্রার্থীকে বছরের পর বছর ন্যায়বিচার পাওয়ার জন্য আদালতের বারান্দায় ঘুরতে দেখতে চাই না। কারণ বিলম্বিত বিচারে বিচারপ্রার্থী জনগণ যেমন আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয় তেমনি তার ন্যায়বিচার পাওয়ার পথ সংকুচিত হয়।

তিনি আরও বলেন, দেখা গেছে, ধর্ষণ মামলায় শেষ পর্যন্ত নগণ্য সংখ্যক আসামির সাজা হয়। বাকিরা প্রভাব-প্রতিপত্তি, তদন্তে দীর্ঘসূত্রতা, সাক্ষ্য গ্রহণের সময় ভিকটিমকে হয়রানি, সাক্ষ্য প্রমাণের অভাব, বাদীপক্ষের সঙ্গে আসামিপক্ষের সমঝোতা ইত্যাদি কারণে পার পেয়ে যাচ্ছে। ফলে সমাজে ধর্ষণের মতো ঘৃণিত কাজ বেড়েই চলেছে এবং সম্প্রতি সমাজের শিক্ষিত লোকের মাধ্যমেই এই ঘৃণিত কাজ বেশি চলছে।

মন্তব্য লিখুন :