ভারী বৃষ্টি থাকবে আরও ২ দিন, সতর্ক সংকেত

আগামী দুই দিন (শনিবার-রবিবার) দেশের বেশিরভাগ অঞ্চলের ওপর দিয়ে থেমে থেমে ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা প্রকাশ করেছে আবহাওয়া অধিদফতর।

শুক্রবার আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, সোমবার এই বৃষ্টির পরিমাণ কিছুটা কমতে পারে। ভারী বৃষ্টিতে চট্টগ্রাম অঞ্চলে ভূমিধসেরও আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে নদী বন্দরে এক সতর্ক সংকেত জারি করা হয়েছে।

তারা জানায়, বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে আজ শুক্রবার সকাল ছয়টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় রাঙামাটিতে ১৬৫, হাতিয়ায় ১৩৫, সীতাকুণ্ডে ১২৯, টাঙ্গাইলে ১২২, কুতুবদিয়ায় ১১১, সন্দ্বীপে ১০১ এবং চট্টগ্রামে ৮৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে।

আজ সকাল নয়টায় পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় অস্থায়ী দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে অতি ভারী বর্ষণ হতে পারে।

শুক্রবার রাত ১টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোর জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর, রাজশাহী, পাবনা, বগুড়া, টঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, কুষ্টিয়া, যশোর, খুলনা, বরিশাল,পটুয়াখালী, কুমিল্লা, নোয়াখালী, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার ও সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে দক্ষিণ বা দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে ১ নম্বর সতর্কসংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আষাঢ় মাসের শুরুতে বর্ষাকালের রূপ ছিল যেন গ্রীষ্মের মতো। দাবদাহের প্রভাবে অসহ্য গরম। তাই অতিষ্ঠ হয়ে পড়ে জনজীবন। কিন্তু আষাঢ়ের বিদায়বেলায় চিরচেনা রূপ ধারণ করেছে বর্ষাকাল। কয়েক দিন আগে ভারী বৃষ্টি শুরু হয় চট্টগ্রামের উপকূলীয় অঞ্চলে। এখন এই বৃষ্টি ছড়িয়ে পড়েছে সারা দেশে। আজ শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে বেলা সোয়া ২টা পর্যন্ত সোয়া দুই ঘণ্টায় রাজধানী ঢাকায় ৪৯ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

বৃষ্টির কারণে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার প্রধান সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ভারী বৃষ্টির কারণে ইতোমধ্যেই দেশের ১০ জেলায় বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। আগামী দুইদিন বৃষ্টি থাকলে পরিস্থিতি আরও মারাত্মক রূপ নেবে বলে ধারণা।

মন্তব্য লিখুন :