আওয়ামী লীগের বক্তব্য জানতে চাই

পরিবারে যুদ্ধাপরাধী, স্বাধীনতাবিরোধী থাকলেও আওয়ামী লীগের সদস্য হওয়া যাবে বলে যে ঘোষণা দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, এটা কি মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল আওয়ামী লীগের আনুষ্ঠানিক বক্তব্য? জাতির কাছে পরিষ্কার করুন।

আমরা জানি, বাংলাদেশের অন্যতম প্রাচীন দল আওয়ামী লীগ। এদেশের যতো অর্জন, আন্দোলন সংগ্রাম আর ইতিহাসের বাঁকে বাঁকে জড়িয়ে আছে দলটির নাম। বাংলাদেশের ইতিহাস মানে আওয়ামী লীগের ইতিহাস। ১৯৪৯ সনের ২৩ জুন সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য নিয়ে আওয়ামী লীগের জন্ম হয়েছিলো। পুরান ঢাকার রোজ গার্ডেনে গণতান্ত্রিক কর্মী সম্মেলনের মাধ্যমে জন্ম নেয় পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ। পরে ১৯৫৫ সালের তৃতীয় জাতীয় সম্মেলনের মাধ্যমে সব ধর্ম-বর্ণের প্রতিনিধি হিসেবে দলের নাম থেকে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দেয় আওয়ামী লীগ ।

বাঙালির প্রাণপ্রিয় রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের ৭০তম জন্মদিন উদযাপিত হলো কয়েকদিন আগে। মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, শামসুল হক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবসহ আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতাদের আজ  শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি। শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করি তাজউদ্দীন আহমেদ, জিল্লুর রহমান, আবদুল জলিল, সর্বশেষ আমাদের আত্মার আত্মীয় সৈয়দ আশরাফুল ইসলামসহ বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রাম-সহ সকল প্রগতিশীল আন্দোলনের নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী নেতাকর্মীকে ।

আমরা আবেগি জাতি হিসেবে প্রমাণ দিয়েছি বারবার। কারো কারো কাছে নগণ্য মধ্যবিত্ত চিন্তার প্রয়াস মনে হলেও আমাদের কাছে এই আবেগ মহামূল্যবান। মহান মুক্তিযুদ্ধে ত্রিশ লাখ বীর বাঙালি এই আবেগ নিয়েই বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে ঝাঁপিয়ে পড়ে জীবন দিয়েছিলো। যদিও এইসব ইস্যু নিয়ে আপনারা ভাবতে চান না! আর ভেবেই কী হবে? ভাবলে কি আর ব্যবসা-বাণিজ্য, ভোগ-উপভোগ কিংবা সম্ভোগে নিজেকে নিয়েজিত করা যায়? তাছাড়া ৪৭ বছরের ইস্যু বড্ড পুরাতনই মনে হয় আজকাল আপনাদের কাছে! আপনারা এখন ডিজিটাল বাংলাদেশের নীতিনির্ধারক। পুরাতনকে ভুলে নতুন কিছু করতে হবে। তাতে জন্মদাগ মুছে ফেললেও কারো কিছু আসে যায় না।

 আচ্ছা '৭১ কিংবা ’৭৫ এর পর যে সকল মূর্খ আবেগী আওয়ামী লীগ কর্মী মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে ধারণ করে জীবন দিলো কিংবা পঙ্গু হয়ে জীবন কাটাচ্ছে, তাদের কথা নিশ্চয় আপনাদের এখন আর মনে পড়ে না। আহা পড়বে কেমন করে? আপনারা যে ব্যস্ত সময় পার করেন! ত্রিশ লাখ শহীদের আত্মা কেমন আছে? জীবন বাজি রেখে যুদ্ধে যাওয়া বীর মুক্তিযোদ্ধারা কেমন আছে? যুদ্ধে অঙ্গ হারানো যোদ্ধারা কেমন আছে? জানতে চাওয়ার সময় কোথায় আপনাদের? আজ যারা এই বিষয় ভাবেন বা কাজ করছেন তাদের সাথে দূরত্ব বাড়িয়ে দিয়েছেন নানা অজুহাতে। 

আজ বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জীবন বাজি রেখে জাতির পিতার স্বপ্নের বাংলাদেশ বিনির্মাণে লড়াই করে চলেছেন একাই। তাঁর হাত ধরে বিশ্বে মাথা উঁচু করে আমরা কথা বলতে শিখেছি। ইতিহাসের কলঙ্কমোচন করতে ’৭১ এর ঘাতকদের বিচার করে বাংলাদেশকে সমৃদ্ধশীল জাতি হিসেবে সারা পৃথিবী যখন সমীহ করছে, ঠিক তখনই শেখ হাসিনাকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক কর্মী, মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রজন্মের কাছ থেকে দূরে সরানোর পাঁয়তারা চলছে! আজ ষড়যন্ত্র ঘরে-বাইরে, পূর্বের ইতিহাসও আমরা জানি।

দলের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য অনুসারে, আজ যাদের দলে নিতে চান, তারা শুধু ৩০ লক্ষ শহীদের হত্যাকারীই নয়, তারা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী, জাতীয় চার নেতার হত্যাকারী,বঙ্গমাতা-রাসেলের হত্যাকারী এবং লক্ষ লক্ষ মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মানুষের হত্যাকারী। তারা এখনও প্রতিনিয়ত বঙ্গবন্ধু কন্যাকে হত্যার চেষ্টা করে যাচ্ছে। তারা বাঙালি নয়, পাকিস্তানি চেতনার ধারক ।

মাননীয়গণ, মনে পড়ে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকাতে জামায়াত দেশি-বিদেশি নানা ষড়যন্ত্র করে আসছিলো? কোটি কোটি টাকা বিনিয়োগ করে আন্তর্জাতিক লবিস্ট নিয়োগ করেছিলো তারা। দেশের মধ্যে কিছু বুদ্ধিজীবী ও রাজনীতিবিদকে কিনতেও অসুবিধা হয়নি তাদের। ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার অন্যতম নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি ছিলো মহান মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতাকারী ঘাতক-দালাল, মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধের বিচার করা। বাঙালি জাতির ৪২ বছরের কলঙ্কমোচন করা।

আমরা মুক্তিযুদ্ধ দেখিনি কিন্তু আমাদের প্রেরণা ছিলো মহান স্বাধীনতা সংগ্রামের লাখো শহিদের রক্তস্নাত স্বপ্ন, বিশ্বাস আর আত্মত্যাগ। বাংলাদেশ সৃষ্টির পর থেকে স্বাধীনতাবিরোধীদের পৃষ্ঠপোষকতায় আমরা ছিলাম ক্ষুব্ধ, ক্রুদ্ধ। শাহবাগে জড়ো হওয়া তরুণদের একমাত্র লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছিলো মুক্তিযুদ্ধে ত্রিশ লাখ শহিদের রক্তঋণ শোধাতে যুদ্ধাপরাধের সর্বোচ্চ শাস্তি, স্বাধীনতাবিরোধী সংগঠন জামায়াতে ইসলামী ও শিবিরের মতো সংগঠনকে নিষিদ্ধকরণ। যদিও এটি ছিলো দেশের মানুষের দীর্ঘলালিত আকাঙ্ক্ষা। 

দেশ-বিদেশের নানা ষড়যন্ত্রের পরেও বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁর প্রতিশ্রুতি রেখেছেন, যুদ্ধাপরাধের বিচারে আপোসহীন থেকে এক লৌহমানবীর ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। বিশ্বমোড়লদের রক্তচক্ষুকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ’৭১ এর ঘাতক রাজাকারদের ফাঁসি বাস্তবায়ন করতে আদালতকে সহযোগিতা করেছেন। এ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, বান কি মুন, জন কেরি, হিলারি ক্লিনটন কিংবা জেমস ক্যামেরনদের অনুরোধ উপেক্ষা করে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের রায় কার্যকর করা একমাত্র শেখ হাসিনার পক্ষেই সম্ভব।

দেশের ভিতরে স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াত-শিবির ও তাদের দোসররা পুলিশ হত্যা থেকে শুরু করে কি নৃশংস তাণ্ডবই না চালিয়েছে! ট্রেনে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা, পেট্রোল বোমায় পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করা যা বাংলাদেশ আগে কখনো দেখেনি! কুখ্যাত খুনি রাজাকার সাঈদীকে চান্দে দেখার খবর ছড়িয়ে হত্যা করা হলো রাষ্ট্রের নিরাপত্তায় নিয়োজিত পুলিশ ও সাধারণ মানুষদেরকে। লোভ আর মোহে এতো তাড়াতাড়ি আপনারা ভুলে গেলেও আমরা কিন্তু ভুলিনি। 

মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্মের একজন তরুণ হিসেবে আপনাদের কাছে জানতে চাই, জাতির পিতার হত্যাকারীদের সাথে কেন আপোস? কিসের মোহে তিনবার ক্ষমতায় আসার পরও খুনিদের সন্তানদের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে ভেড়ানো এতো জরুরি হয়ে উঠলো? মনে রাখবেন, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের রক্ত কখনও একাত্তরের খুনিদের রক্তের সাথে মিলতে পারে না। আজ আমাদের কাছে পরিষ্কার- একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী সংগঠন জামায়াত যখন শত ষড়যন্ত্র করেও তাদের পাকি আদর্শে বিশ্বাসী পিতাদের রক্ষা করতে পারেনি, তখন বঙ্গবন্ধুর আদর্শের ছায়াতলে ভিড়িয়ে নতুন পরিচয়ে দেশ ধ্বংসের নীল নকশা তাদেরকে নিয়ে আপনারা বাস্তবায়ন করবেন। ইতোমধ্যে দলের বিভিন্ন পদ-পদবি দিয়ে, নির্বাচনে নমিনেশন দিয়ে তাদের অনেককে পুনর্বাসন করা হয়েছে শেখ হাসিনার নির্দেশ অমান্য করে। 

২০১৯ এর ২৮ জুন, আওয়ামী লীগের সদস্য সংগ্রহ অভিযানে নতুন সদস্যদের পরিবারে কেউ যুদ্ধাপরাধী থাকলেও বিষয়টি আমলে নেওয়া হবে না বলে আজ আপানারা জানাচ্ছেন। মাননীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের এর এই বক্তব্য যদি আওয়ামী লীগের বক্তব্য হয়, তাহলে মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম নতুন করে ভাববে। আর তা যদি না হয়, বুঝতে হবে এটি বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রীকে মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের সন্তানদের কাছ থেকে দূরে সরানোর গভীর ষড়যন্ত্র! আমরা সত্যিটা জানতে চাই। 

লেখক: সংগঠক, গণজাগরণ মঞ্চ; সাধারণ সম্পাদক, গৌরব ’৭১।

মন্তব্য লিখুন :