পোলার্ড ঝড়ে ঢাকার বড় পুঁজি

মিরপুরের হোম অব ক্রিকেটে বিপিএলের হাই ভোল্টেজ ম্যাচে রংপুর রাইডার্সকে বড় লক্ষ্য ছুড়ে দিয়েছে সাকিব আল হাসানের ঢাকা ডাইনামাইটস। টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করে কাইরন পোলার্ডের ঝড়ো ৬২ রানের উপর ভর করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৯ উইকেট হারিয়ে ১৮৩ রানের পুঁজি পায় ঢাকা।    

ব্যাট করতে নেমে মাশরাফির প্রথম ওভার দুই বাউন্ডারি হাঁকিয়ে দলকে ভালো সূচনা এনে দিয়েছিলেন সুনিল নারিন। প্রথম ওভারে দুই ওপেনার মিলে ৯ রান নিলেও ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলে সোহাগ গাজীর প্রথম বলে বোল্ড হন জাজাই। মাত্র ১ রান করে সাজঘরে ফেরেন প্রথম দুই ম্যাচে ফিফটি হাঁকানো এই বিধ্বংসী ওপেনার।  

জাজাই ফিরে যাওয়ার পরের ওভারেই ঢাকা শিবিরে আঘাত হানেন রংপুর অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। সুনিল নারিনকে ব্যক্তিগত ৮ রানে বিদায় করেন এই পেসার। পয়েন্ট অঞ্চলরে বোপারার হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন তিনি।  

দুই উইকেট হারালেও রানের চাকা সচল রাখার লক্ষ্য ছিল ঢাকার। সেই উদ্দেশ্যেই হাত খুলে খেলছিলেন রনি তালুকদার। সোহাগ গাজীর দ্বিতীয় ওভারের ১৩ রান নিলেও নিজেকে আটকে রা খতে পারেন নি রনি। ওভারের শেষ বলে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে বাউন্ডারি লাইনে বেনি হাওয়েলের অসাধারণ ক্যাচে বিদায় নেন রনি।  

সাকিব এবং মিজানুর রহমান মিলে হাল ধরার চেষ্টায় ছিলেন ঢাকার পক্ষে। কিন্তু দলীয় ৬৪ রানে বোলিংয়ে আসা ইংলিশ অলরাউন্ডার বেনি হাওয়েলের ছোড়া স্লো ইয়র্কারে লেগ বিফরের ফাঁদে পড়েন মিজানুর। ১২ বলে ১৫ রান আসে তাঁর ব্যাট থেকে।  

৪ উইকেট হারিয়ে বসা ঢাকাকে চাপমুক্ত করেন সাকিব আল হাসান এবং কাইরন পোলার্ড। বিশেষ করে কাইরন পোলার্ড রংপুরের বোলারদের বিপক্ষে চড়াও হয়ে খেলতে থাকেন। ইনিংসের ১৩তম ওভারে নাজমুল ইসলাম অপু বলে ২৩ রান হাঁকান পোলার্ড।

এরপর ২১ বলে তুলে নেন ফিফটি। তবে ফিফটি হাঁকিয়ে ব্যক্তিগত ৬২ রানে হাওয়েলের দ্বিতীয় শিকার হয়ে ফেরেন পোলার্ড। ৭৮ রানের জুটি গড়েন তাঁরা। খানিক পর সাকিব আল হাসানকে ৩৬ রানে বিদায় করেন ফরহাদ রেজা।

শেষের দিকে আরেক ক্যারবিয়ান অলরাউন্ডার আন্দ্রে রাসেলও তান্ডব চালান রংপুরের বোলারদের উপর। ৩ ছক্কায় ১৩ বলে ২৩ নিয়ে রাসেল ফিরলে শেষ পর্যন্ত নির্ধারিত ১৮৪ রানে থামে ঢাকার ইনিংস। রংপুরের পক্ষে শফিউল ইসলাম নেন ৩ উইকেট।

মন্তব্য লিখুন :