বিশ্বকাপ: সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ১০ পেস বোলার

সামনেই কড়া নাড়ছে ওয়ানডে বিশ্বকাপ। এ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে ইতোমধ্যেই দল ঘোষণা করেছে অংশ নেয়া ১০টি দেশ। সেখানে দেখা গেছে পেস বোলারের আধিক্য। এর কারণ এই টুর্নামেন্টটা যে হতে যাচ্ছে পেসের স্বর্গরাজ্য ইংলান্ডে। যদিওে অনেকের ধারণা এবার ব্যাটিং উইকেটে খেলা হবে। তবে পেসাররা যে সুবিধা পাবেন সেটা মেনে নিচ্ছেন বিশ্লেষকরা।

এ কারণেই মূলত পেসকে প্রধান্য দিয়ে দল সাজিয়েছে অংশ নেয়া দেশগুলো। তাদের স্কোয়াড ঘেটে দেখা গেছে প্রায় সব দলেই ৫ থেকে ৭ জন করে পেস বোলার রয়েছে। এর মধ্যে স্বাগতিক ইংল্যান্ড স্কোয়াডে আছেন ৭ পেসার।

আফগানিস্তান বাদে প্রত্যেক দলেই এমন দু’একজন পেসার আছেন যারা হয়ে উঠতে পারেন ব্যাটসম্যানদের জন্য আতঙ্ক। দেখে নেওয়া যাক এম,ন ১০ পেসারের তালিকা:

কাগিসো রাবাদা: এবারের বিশ্বকাপের ব্যাটসম্যানদের সবচেয়ে বড় ত্রাস হবেন তিনি। তার ঝলক মিলেছে আইপিএল। দুরন্ত ইয়ার্কারে বিপক্ষ ব্যাটসম্যানকে ক্রমাগত সমস্যায় ফেলেছেন। আর ইংল্যান্ডের পিচে তো হয়ে উঠবেন আরও ভয়ঙ্কর।

আইপিএলের দুরন্ত ফর্ম ধরে রেখেই বিশ্বকাপ জার্নি শুরু করতে চাইবেন রাবাদা। কেরিয়ারের প্রথম বিশ্বকাপ রাঙাতে কে বা না চাইবে। ক্যারিয়ারে এখনও পর্যন্ত ৬৬টি ওয়ানডে ম্যাচে ১০৬টি উইকেট পেয়েছেন কাগিসো। ২০১৫ সালে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শিকার ১৬/৬। চার উইকেট নিয়েছেন সাতবার।

জসপ্রীত বুমরাহ: বল হাতে কোহলির দলের সেরা অস্ত্র মনে করা হচ্ছে তাকে। ভারতকে সামনে থেকে দেবেন লিড। এই ইংর্কার স্পেশালিস্ট আইপিএলের ডেথ ওভারেও দারুণ সফল। উনিশের আইপিএলে সব মিলিয়ে ১৬ ম্যাচে নিয়েছেন ১৯ উইকেট। বিশ্বকাপে তাঁকে নিয়ে তাই প্রত্যাশা তুঙ্গে। ইতিমধ্যেই ৪৯টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ঝুলিতে ৮৫টি উইকেট। এবার বিশ্বকাপের মঞ্চে বুমরাহ কেমন পারফর্ম্যান্স করেন, সেটাই এখন দেখার।

মিচেল স্টার্ক: বিশ্বের অন্যতম সেরা পেসার মানা হয় এই অজিকে। তার হাতে রয়েছে গতির পাশাপাশি দুর্দান্ত সুইং। ইয়র্কার দিতেও তার কোনো জুড়ি নেই। ইংল্যান্ডের সুইং সহায়ক উইকেটে অজি জার্সিতে সেরা গেম চেঞ্জার হতে পারেন মিচেল স্টার্ক। শেষবার নিজেদের ডেরায় মাইকেল ক্লার্কের নেতৃত্বে বিশ্বকাপ জয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল স্টার্কের। শেষ বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ ২২ উইকেট তুলে নিয়ে টুর্নামেন্টের সেরা ক্রিকেটার নির্বাচিত হয়েছিলেন বাঁ-হাতি অজি পেসার।

ট্রেন্ট বোল্ট: শেষবার বিশ্বকাপে স্টার্কের পাশাপাশি ২২ উইকেট তুলে নিয়েছিলেন নিউজিল্যান্ডের বাঁ-হাতি পেসার ট্রেন্ট বোল্ট। নিউজিল্যান্ডকে ফাইনালে তোলার পিছনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছিলেন বোল্ট। উনিশের বিশ্বকাপে এবার ইংল্যান্ডের আবহাওয়ায় সুইং ও গতিতে আরও ভয়ংকর হয়ে উঠতে পারেন কিউয়ি পেসার।

মোস্তাফিজুর রহমান: ইতোমধ্যেই কাটার মাস্টার হিসেবে ক্যাতি পেয়েছেন এই বাংলাদেশি। হাতে রয়েছে দুর্দান্ত সব ইয়র্কারও। ব্যাটসম্যানকে বোকা বানানোতে তার জুড়ি মেলা ভার। ইংল্যান্ডের সুইং পিচে তিনি তেতে উঠবেন আরও। তার উপরই নির্ভর করছে বাংলাদেশের সাফল্যও। সর্বশেষ ২ ম্যাচে এই তারকা বোলার নিয়েছেন ৬ উইকেট। বোঝাই যাচ্ছে প্রস্তুত তিনি ব্যাটসম্যানদের কাপন ধরাতে।

হাসান আলি: পাকিস্তানের তরুণ পেসারকে নিয়ে স্বপ্নে দেখছেন অনেকেই। শেষবার ২০১৭ সালে ইংল্যান্ডের মাটিতে অনুষ্ঠিত হওয়া চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে ১৩ উইকেট তুলে নিয়ে টুর্নামেন্টের সেরা ক্রিকেটার হয়েছিলেন হাসান। বিশ্বকাপে তাই পাক পেসারকে নিয়ে প্রত্যাশা তুঙ্গে। এখনও পর্যন্ত ৪৪ টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে ৭৭ উইকেট পেয়েছেন হাসান আলি।

কেমার রোচ: ওয়েস্ট ইন্ডিজের এই বোলার খুব একটা ফর্মে নেই। তবে ইংল্যান্ডের বাউন্সি পিচে তিনি যে ভেলকি দেখাবেন না তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। কারণ ১৪৫ গতিতে বল করার পাশাপাশি বাউন্স দিতে দারুণভাবে পারদর্শী তিনি। সর্বশেস ১০ ম্যাচে এই বোলার পেয়েছেন ১২ উইকেট।

লাসিথ মালিঙ্কা: শ্রীলঙ্কান এই বোলার তার ইংর্কার আর স্লো বাউন্সের জন্য বিখ্য্যাত। অতীতে অনেকবারই দেখা গেছে হঠাৎ করেই তিনি ম্যাচ ঘুরিয়ে দিয়েছেন। শেষ দিকে তার বল খেলতে সমস্যায় পড়ছে ব্যাটসম্যানরা। এমনও হয়েছে তিনি ওভারে চারটি ইংর্কার মেরেছেন। মূলত তাকে ঘিরেই শ্রীলঙ্কার পেস আক্রমণ সাজানো হয়েছে। ২১৮ ওয়ানডেতে ২২ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

লুঙ্গি এনগিদি: খুব বেশি সময় হয়নি তিনি আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার শুরু করেছেন। তবে ইতোমধ্যেই ব্যাটসম্যানদের নাভিশ্বাস তুলেছেন। বাউন্সে পারদর্শী এই বোলার নতুন বলে সুয়ং করাতে পারেন। তাই ইংল্যান্ডের পিচে তিনি যে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠবেচন সেটা সবাই বলছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে এ পর্যন্ত ১৮ ওডিআই খেলেছেন। উইকেট নিয়েছেন ৩৪টি।

জফরা আর্চার: এই ইংল্যান্ড তারকা বিশ্বকাপ স্কোয়াডে জায়গা পাননি। তবে সবার ধারণা ওয়েস্ট ইন্ডিজের সাবেক এই বোলারকে নেয়া হবে বিশ্বকাপ দলে। তাহলে ইংল্যান্ড পেয়ে যাবে পেস অ্যাটাকে দারুণ শক্তি। কারণ তার পেস আর বাউন্সে ইতোমধ্য্যেই নাকাল ব্যাটসম্যানরা। এখন দেখা যাক তিনি দলে জায়গা পান কিনা।

মন্তব্য লিখুন :