ফাইনালেও বাদ যায়নি আম্পায়ারিং বিতর্ক (ভিডিও)

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) এবারের আসর জুড়েই ছিল বিতর্ক। ফাইনালের মতো গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটিও সেই বিতর্ক থেকে বাদ যায়নি।

রোববার হায়দরাবাদের রাজীব গান্ধী স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় চেন্নাই সুপার কিংস এবং মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাট করে মুম্বাই।মুম্বাইয়ের ইনিংসের শেষ দিকে আম্পায়ারের সিদ্ধান্তে হতাশ হয়েই ব্যাট শুন্যে ছুরে মারেন মুম্বাইয়ের অলরাউন্ডার কায়রন পোলার্ড।

ইনিংসের শেষ ওভারে ডুয়াইন ব্রাভোর করা ওভারের দ্বিতীয় বলটি ছিল অফ স্টাম্পের বাইরে। ওয়াইড মনে করে বলটি দেখে শুনেই ছেড়ে দেন পোলার্ড। কিন্তু আম্পায়ার নিতিন মেনন ওয়াইডের কল দেননি।

পরের বলটি ছিল আরো বাইরে। সেটিও আম্পায়ার নিতিন মেনন বৈধ ডেলিভারি হিসেবেই গণনা করেন। তাতেই ক্ষিপ্ত হন ব্যাটসম্যান পোলার্ড। এ সিদ্ধান্ত মেনে না নিয়ে শুন্যে ব্যাট ছুরে মারেন পোলার্ড। এমন ঘটনার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় সামালোচনার ঝড় বয়ে যায়।

ফাইনালের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে পারেনি মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স। টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপর্যয়ে পড়ে যায় মুম্বাই। সময়ের ব্যবধানে উইকেট পড়ে যাওয়ায় চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়া সম্ভব হয়নি রোহিত শর্মার নেতৃত্বাধীন দলটির।

ইনিংসের শেষ দিকে ব্যাটিংয়ে নেমে ঝড় তোলার চেষ্টা করেন কায়রন পোলার্ড। তিনি দলের হয়ে সর্বোচ্চ ২৫ বলে তিনটি ছক্কা ও ৩টি চারের সাহায্যে অপরাজিত ৪১ রান করেন।

উদ্বোধনীতে ৪৫ রান করা মুম্বাই এরপর শূন্য রানের ব্যবধানে হারায় দুই ওপেনারের উইকেট। এরপর মুম্বাইয়ের ব্যাটিংয়ে আবারও ধ্বস নামান ইমরান তাহির।২ উইকেটে ৮২ রান করা মুম্বাই এপর ১৯ রানের ব্যবধানে হরায় তিন উইকেট। পরপর দুই ওভারে উইকেট তুলে নেন লেগ স্পিনার ইমরান তাহির।

১৪.৪ ওভারে ৫ উইকেটে ১০১ রান করা মুম্বাইকে চ্যালেঞ্জিং স্কোর উপহার দিতে ইনিংসের শেষ দিকে হার্দিক পান্ডিয়াকে সঙ্গে নিয়ে ব্যাটিংয়ে ঝড় তোলার চেষ্টা করেন কায়রন পোলার্ড। কিন্তু প্রত্যাশিত ব্যাটিং করতে পারেননি পান্ডিয়া। ১০ বলে মাত্র ১৬ রান করেই ফেরেন পান্ডিয়া।

শেষ পর্যন্ত কায়রন পোলার্ডের ২৫ বলের অপরাজিত ৪১ রানে ভর করে ৮ উইকেটে ১৪৯ রান তুলতে সক্ষম হয় মুম্বাই। চেন্নাইয়ের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন দীপক চাহার। দুটি করে উইকেট নেন ইমরান তাহির ও শার্দুল ঠাকুর।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স: ২০ ওভারে ১৪৯/৮ (পোলার্ড ৪১*, ডি কক ২৯, ইশান কৃষান ২৩; চাহার ৩/২৬, ইমরান ২/২৩, শার্দুল ঠাকুর ২/৩৭)।

মন্তব্য লিখুন :