শ্রীলঙ্কায় তাসকিন-বিজয়দের কী করতে হবে বলে দিলেন তামিম

বেশ কয়েকজন নিয়মিত ক্রিকেটার ছাড়াই শ্রীলঙ্কা সফরে বাংলাদেশ। দলে সুযোগ পেয়েছেন অনিয়মিত ক্রিকেটাররা। লঙ্কা সফরে টাইগারদের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক তামিম ইকবাল মনে করেন, যাওয়া-আসার মধ্যে থাকা ক্রিকেটারদের সুযোগটি লুফে নিয়ে সামর্থ্য প্রমাণ করতে হবে।

হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির কারণে সিরিজ থেকে ছিটকে পড়েছেন ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা এবং অলরাউন্ডার মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তাদের বদলি হিসেবে সুযোগ পেয়েছেন তাসকিন আহমেদ ও ফরহাদ রেজা।

তাসকিন সবশেষ জাতীয় দলের জার্সিতে ওয়ানডে খেলেন ২০১৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজে। এরপর ইনজুরি ও ফর্মহীনতায় বাইরে ছিলেন তিনি। আয়ারল্যান্ডে অনুষ্ঠিত ত্রিদেশীয় সিরিজে দলের সঙ্গে ছিলেন। তবে ম্যাচও খেলার সুযোগ পাননি ডানহাতি গতিতারকা।

আয়ারল্যান্ড সফরে দীর্ঘ আট বছর পর জাতীয় দলে ডাক পান ফরহাদ রেজা। কিন্তু একাদশে জায়গা হয়নি তারও। এবার শ্রীলঙ্কা সফরে ডাক পেলেন পেস বোলিং অলরাউন্ডার।

ব্যক্তিগত কারণে এ সিরিজে নেই সাকিব আল হাসান ও লিটন দাস। সাকিব যাবেন হজ পালন করতে; আর বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন লিটন। দুইজনের অনুপস্থিতিতে দলে জায়গা পেয়েছেন তাইজুল ইসলাম ও এনামুল হক বিজয়।

তাইজুল সবশেষ ওয়ানডে খেলেন ২০১৬ সালে আফগানিস্তানের বিপক্ষে। লম্বা বিরতির পর জাতীয় দলে ফিরেছেন তিনি। প্রায় এক বছর পর ডাক পেয়েছেন বিজয়। ২০১৮ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে দলের সঙ্গে ছিলেন তিনি।

সামর্থ্য প্রমাণের জন্য মুখিয়ে থাকবেন এসব ক্রিকেটার বলে মনে করেন তামিম। তার ভাষায়, আমার কাছে মনে হয়; সিরিজটা আমাদের জন্য অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের যে দল, তাদের প্রমাণ করার অনেক কিছু আছে। ইনজুরি ও অন্যান্য কারণে অনেক অভিজ্ঞ ক্রিকেটার এ সিরিজে নেই। যারা ডাক পেয়েছে, দুই হাতে সুযোগটি লুফে নিতে পারলে সেটা বাংলাদেশের জন্য মঙ্গল হবে। পাশাপাশি তাদের জন্যও ভালো হবে।

লঙ্কানদের বিপক্ষে গেল কয়েক দেখায় এগিয়ে ছিল বাংলাদেশ। তাই এবারও ভালো করতে আশাবাদী তামিম। তবে নিজেদের কন্ডিশনে স্বাগতিকরা শক্তিশালী দল। সেটা ভালো করেই জানেন তামিম। তাই সিরিজটিকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন প্রথমবারের মতো অধিনায়কের দায়িত্ব পাওয়া ড্যাশিং ওপেনার।

শনিবার বিমানবন্দরে তিনি বলেন, আমার কাছে মনে হয়; এ সিরিজ অনেক চ্যালেঞ্জিং। শ্রীলঙ্কা তাদের ঘরের কন্ডিশনে অনেক শক্তিশালী দল। তবে এর আগের সিরিজগুলোতে দেখেছি, আমরা অনেক ভালো করেছি। এবারও ভালো না করার কোনো কারণ খুঁজে পাই না।

এ সফরে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার মধ্যকার প্রথম ওয়ানডে হবে ২৬ জুলাই কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে। একই ভেন্যুতে ২৯ জুলাই হবে দ্বিতীয় ম্যাচ। আর ৩১ জুলাই তৃতীয় ও শেষ ম্যাচে সেখানেই মুখোমুখি হবে দুই দল।

মন্তব্য লিখুন :