আমাকে বলা হয়েছিল দরজা খোলা: ভিলিয়ার্স

ইংল্যান্ড, বাংলাদেশ, ভারতের বিপক্ষে টানা হেরে বিশ্বকাপ থেকেই ছিটকে পড়ার আশঙ্কায় পড়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা। দলের এমন করুণ পরিস্থিতে আফ্রিকার সমর্থকরা দাবি তোলেন দলের প্রয়োজনে এবি ডি ভিলিয়ার্সকে ফেরানো হোক।

আর সেই সময় সংবাদ প্রকাশিত হয়, গত বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে বিদায় নেয়া দক্ষিণ আফ্রিকার সাবেক অধিনায়ক ভিলিয়ার্স বিশ্বকাপে খেলতে চেয়েছিল। কিন্তু এমন সময় তিনি বিশ্বকাপ খেলার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন যখন দল প্রায় চূড়ান্ত।

বিশ্বকাপে বাজে পারফরম্যান্সের কারণে সেমিফাইনালের আগেই বিদায় নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। দলের পারফরম্যান্সে নিয়ে দেশজুড়েই চলছে সমালোচনা।

আর সেই সমালোচনার মাঝেই নতুন করে বোমা ফাটালেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক এবি ডি ভিলিয়ার্স।

শুক্রবার বিকালে এক টুইটবার্তায় ভিলিয়ার্স বলেন, অবসর নেয়ার দিন আমাকে ব্যক্তিগতভাবে একজন বলেছিলেন, তোমার জন্য দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটের দরজা খোলা আছে, চাইলে বিশ্বকাপে ফিরতে পারবে। আমি খেলার জন্য প্রস্তাব করিনি; বরং আমাকেই বলা হয়েছিল সুযোগের কথা। আমি হ্যাঁ বলেছিলাম, হয়ত না বললেই ভালো হতো। এই সময়ে আমার সঙ্গে বোর্ডের কোনো চুক্তিও ছিল না। আমি জানাই কোচ ওটিস গিভসন ও অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিসের অধীনে দক্ষিণ আফ্রিকা এগিয়ে যাচ্ছে।

ডি ভিলিয়ার্স বলেন, স্কুল থেকেই আমি ও ফাফ ডু প্লেসিস বন্ধু। বিশ্বকাপ স্কোয়াড ঘোষণার দুদিন আগে তার সঙ্গে আমার ম্যাসেজে কথা হয়েছিল, তখন আমি বেশ ফর্মেই ছিলাম। অবসর নেয়ার সময় আমাকে যে কথা বলা হয়েছিল সেটিও আমি তাকে বলেছিলাম। আমি আরও বলেছি, যদি দলের প্রয়োজন হয় তাহলেই আমি বিশ্বকাপে খেলতে পারি।

দক্ষিণ আফ্রিকার অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ভিলিয়ার্স আরও বলেন, সত্য কথা বলি, আমি বিশ্বকাপে খেলতে দলে ফিরতে চাইনি। বিশ্বকাপ শুরুর আগে আমি টিম ম্যানেজমেন্টের কাছে জোর করিনি যে আমাকে দলে নেয়া হোক। আশাও করিনি যে বিশ্বকাপ দলে আমি জায়গা পাব।

তিনি আরও বলেন, বিশ্বকাপ দলে না নেয়ায় আমি একটুও কষ্ট পাইনি। কিংবা আমার ওপর অবিচারও করা হয়নি। কেউ কেউ বলছেন আমি অর্থের মোহে পড়েছি। এটা সম্পূর্ণ ভুল। আমি টাকার চিন্তা করলে অনেক জায়গায় খেলতে পারতাম। কিন্তু অনেক প্রস্তাব আমি ফিরিয়ে দিয়েছি।

মন্তব্য লিখুন :