দ্বিতীয় ম্যাচেই হোঁচট খেল রিয়াল

ম্যাচের মাত্র ১২ মিনিট বাকি থাকতে গোলের একেবারে সামনে থেকে বল জালে পাঠাতে ব্যর্থ হয়েছিলেন করিম বেনজেমা। এর কয়েক মিনিট বাদেই রিয়াল মাদ্রিদকে লিড এনে দিয়েছিলেন তিনি। 

গোলের পরই ক্যামেরা খুঁজে নিল রিয়াল ভায়াদোলিদ স্ট্রাইকার সার্জি গার্দিওলাকে। বুটজোড়া শক্তভাবে বাধলেন তিনি, যেন দলকে ম্যাচে ফেরানোর চোয়ালবদ্ধ প্রতিজ্ঞা। সফলও হলেন, ৮৮ মিনিটে অস্কার প্লানোর থ্রু পাসে কর্তোয়াকে পরাস্ত করলেন তিনি। কিছুক্ষণ আগে সরব সান্তিয়াগো বার্নাব্যু মুহূর্তেই পরিণত হল মৃত্যুপুরিতে। ২০১৯-২০ লা লিগার প্রথম হোম ম্যাচেই পয়েন্ট হারাল রিয়াল, ভায়াদোলিদের সাথে ১-১ গোলে ড্র করেছে তারা।  ১৮ বছর পর এবারই প্রথম বার্নাব্যুতে রিয়ালকে রুখে দিল ভায়াদোলিদ।

অন্তিম মুহূর্তের গোলে পয়েন্ট ছিনিয়ে আনা ভায়াদোলিদ হয়তো জয়টাও পেতে পারত দ্বিতীয়ার্ধে। ৭৫ মিনিটে প্রতি-আক্রমণে ওয়ালদো রুবিওর আগুনে শট দুর্দান্তভাবে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন রিয়াল গোলরক্ষক থিবো কর্তোয়া। এর মিনিট পাঁচেক বাদেই রিয়াল লিড নেয় বেনজেমার গোলে। ৮১ মিনিটে রাফায়েল ভারানের লম্বা পাস নিয়ন্ত্রণে এনে দুর্দান্ত এক হাফভলিতে বল জালে জড়ান তিনি। লা লিগায় প্রথম ফ্রেঞ্চম্যান এবং রিয়ালের সপ্তম ফুটবলার হিসেবে লিগে ১৫০ গোলের মাইলফলক স্পর্শ করলেন বেনজেমা। লিড নেওয়ার আগে দ্বিতীয়ার্ধে ভায়াদোলিদের মত সুযোগ হাতছাড়া করেছিল রিয়ালও। 

প্রায় ২ বছর পর রিয়ালের একাদশে ফিরেছিলেন হামেস রদ্রিগেজ, মাস পাঁচেক পর বার্নাব্যুতে শুরু থেকেই নেমেছিলেন বেল। সেল্টা ভিগোর বিপক্ষে লাল কার্ড দেখা লুকা মদ্রিচের জায়গায় একাদশে এসেছিলেন ইস্কো। আক্রমণাত্মক একাদশ নামানো রিয়াল লিড নিতে পারত ম্যাচের শুরুতেই। ১৩ মিনিটে দানি কারভাহালের মাইনাস থেকে বেলের শট ভায়াদোলিদ গোলরক্ষক জর্দি মাসিপকে পরাস্ত করলেও চলে যায় গোলের সামান্য বাইরে দিয়ে। শুরুটা ভাল করলেও প্রথমার্ধের সময় যত গড়িয়েছে, রিয়ালের আক্রমণের ধার হারিয়েছে ততটাই। পুরো ম্যাচ প্রতি-আক্রমণে খেলা ভায়াদোলিদ অবশ্য সুযোগটা কাজে লাগাতে পারত আরেকটু হলেই।

কিন্তু ২৮ মিনিটে সার্জিও গার্দিওলার শট ফিরিয়ে দেন কর্তোয়া। বেলজিয়ান গোলরক্ষকের মতই ভায়াদোলিদ কিপার জর্দি মাসিপ ছিলেন দারুণ ফর্মে। ৩৮ এবং ৪০ মিনিটে বেল ও বেনজেমার দুটি প্রচেষ্টা অসামান্য দক্ষতায় ফিরিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। শেষ ১৬ দেখায় রিয়ালের বিপক্ষে মাত্র ৩বার ড্র করতে পেরেছিল রিয়াল (১২ হার, ৩ ড্র, ১ জয়)। আজ ড্রয়ের সংখ্যাটা গিয়ে দাঁড়াল ৪-এ। ২ ম্যাচে ৪ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দুই নম্বরে থাকল জিদানের দল।

মন্তব্য লিখুন :