বাউন্সারে ‘মৃত্যু মুখে’ স্মিথ, হাসছিলেন আর্চার!

ক্রিকেটের নয়া পেস সেনশেসন জফরা আর্চার। ইংলিশ এই পেসারের বাউন্সার সামাল দিতে হিমশিম খেতে হয়ে বিশ্বের বাঘা বাঘা সব ব্যাটসম্যানকে। এইতো গত বিশ্বকাপে তার বাউন্সারে আঘাতপ্রাপ্ত হয়ে মাঠই ছাড়তে হয় দক্ষিণ আফ্রিকার হাশিম আমলাকে। তার বাউন্সারে গুরুতর চোট পান অ্যালেক্স ক্যারিও।

এবার তার বাউন্সারের বলি অজি তারকা স্টিভ স্মিথ। শনিবার ইংলিশ পেসারের বাউন্সার আছড়ে পড়ে স্টিভ স্মিথের ঘাড়ে। আঘাত পাওয়ার পরেই মাঠে শুয়ে পড়েন স্মিথ। সাথে সাথে স্মিথের সামনে এগিয়ে যান জস বাটলার, জনি বেয়ারস্টো ও জো রুটসহ কয়েকজন। পরে তাকে উঠিয়ে নেয়া হয়। যদিও ৪৫ মিনিট পর তিনি মাঠে আসেন। তবে আউট হয়ে ফিরতেই গুরুতর অবস্থায় তাকে নেয়া হয় হাসপাতালে। বেশ কয়েকবার জ্ঞানও হারান তিনি।

তবে যার বাউন্সারে তিনি আঘাতপ্রাপ্ত হয়েছেন সেই আর্চার একবারের জন্য তাকে দেখতে যাননি। এমনকি তিনি এমন ঘটনার পর হাসছিলেন। এ নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক সমালোচনা। এর আগেও হাশিম আমলা যখন তার বাউন্সারে আঘাতপ্রাপ্ত হন একই কাণ্ড করেন আর্চার। আমলাকে দেখতে তো যানইনি উল্টো তিনি হাসছিলেন।

পাকিস্তানের সাবেক পেসার শোয়েব আখতার আর্চারের সমালোচনায় লেখেন, বাউন্সার খেলারই অংশ। কিন্তু যখন কোনো বোলার ব্যাটসম্যানকে মাথার ওপর বাউন্সার দেয়, আর সে বলের আঘাতে পড়ে যায় ব্যাটসম্যান, তাহলে বোলারের অবশ্যই তাঁর কাছে যাওয়া উচিত। একটা সৌজন্য বোধের প্রয়োজন। আর্চার এটা মোটেই ভালো করেনি।

আর্চারের এমন কাণ্ডের সমালোচনা করেছেন বেশ কয়েকজন সাবেক খেলোয়াড়। এই বিষয়ে অবশেষে মুখ খুলেছেন সাবেক ক্যারিবিয়ান।

এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘স্মিথকে আহত করার কোনো পরিকল্পনা ছিল না আমাদের। হ্যাঁ, আমরা দ্রুত উইকেট নিতে চেয়েছিলাম। তবে এভাবে আহত করে নয়।  স্মিথ যখন পড়ে গিয়েছিলেন দেখেই আমার হৃদস্পন্দন বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। ওকে উঠে দাঁড়াতে দেখে আমরা স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছিলাম। কেউই দেখতে চায় না, স্ট্রেচারে করে কোনো খেলোয়াড় মাঠ ছাড়ছে।’

মন্তব্য লিখুন :