হেড কোচের আগ্রহেই দলে বিপ্লব-নাজমুল

ত্রিদেশীয় সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচের একটিতে জিতেছে ও একটিতে হেরেছে বাংলাদেশ। ঢাকা পর্ব শেষে এখন শুরু হবে চট্টগ্রাম পর্ব। এই পর্বের আগে স্কোয়াডে আনা হয়েছে বড় ধরনের পরিবর্তন। সৌম্য সরকারসহ চারজনকে বাদ দিয়ে দলে ঢোকানো হয়েছে পাঁচজনকে।

যাদের মধ্যে দুই অভিজ্ঞ আর তিনজন নতুন মুখ। রুবেল হোসেন, শফিউল ইসলামের সাথে দলে জায়গা হয়েছে আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, নাঈম শেখ ও নাজমুল হোসেন শান্তর। আর বাদ পড়েছেন সৌম্য সরকার, আবু হায়দার রনি, মেহেদী হাসান ও ইয়াসিন আরাফাত।

বাংলাদেশ হাই পারফরম্যান্স (এইচপি) দলের হয়ে ভারতে যাওয়ার কথা ছিল আমিনুল ইসলাম বিপ্লব ও নাজমুল হোসেন শান্তর। কিন্তু নাটকীয় পালাবদলে দুজনকেই যেতে হচ্ছে চট্টগ্রামে।

প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন জানালেন, মূলত কোচের আগ্রহে নেওয়া হয়েছে এই দুজনকে। তিনি জানান, প্র্যাকটিসে ওকে দেখে কোচের ভালো লেগেছে। আমরা চেয়েছিলাম ওকে ভারতে পাঠাতে (এইচপির হয়ে)। কিন্তু কোচ বেশ জোরাজুরি করছিলেন যে ওকে আরও ভালোভাবে দেখতে চান। এজন্যই নিয়েছি।

টুর্নামেন্টের চট্টগ্রাম পর্বের বাংলাদেশ দলে সবচেয়ে বড় চমক বলা যায় আমিনুলের দলে আসা। ২০ ছুঁইছুঁই তরুণ গত জুলাইয়ে অনেকটা হুট করেই সুযোগ পান বাংলাদেশ ‘এ’ দলে। আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে সিরিজের শেষ একদিনের ম্যাচ খেলেন। এরপর বাংলাদেশ ইমার্জিং দলের হয়ে খেলেছেন শ্রীলঙ্কা ইমার্জিং দলের বিপক্ষে।

শান্তর টি-টোয়েন্টি দলে আসাও এইচপি কোচদের সার্টিফিকেটে, জাতীয় কোচের আগ্রহে। টি-টোয়েন্টি রেকর্ড তার সমৃদ্ধ নয় ততটা, তার ব্যাটিংয়ের ধরনকে টি-টোয়েন্টির জন্য উপযুক্ত মনে করা হয়নি এতদিন।

দলে ডাক পাওয়া নতুন আরেকজনকে নিয়ে অবশ্য খুব একটা প্রশ্ন নেই। ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে গত দুই মৌসুমে দুর্দান্ত পারফর্ম করেছেন মোহাম্মদ নাঈম শেখ। আফগানিস্তান ‘এ’ দলের বিপক্ষে একদিনের ম্যাচের সিরিজের শেষ ম্যাচে করেছিলেন সেঞ্চুরি। এরপর শ্রীলঙ্কা ইমার্জিং দলের বিপক্ষে ভালো করেননি। তবে সৌম্যর বাজে ফর্ম নাঈমকে করে দিয়েছে সুযোগ।

মন্তব্য লিখুন :