নাসিরের সাথে তামিমার প্রথম স্বামীর ফোনালাপ ভাইরাল

ক্রিকেটার নাসির হোসেন এখন টক অব দ্য কান্ট্রি। কেবিন ক্রু তামিমা তাম্মিকে বিয়ের পর নতুন করে আলোচনায় এ তারকা। এর কারণ তামিমার আগের বিয়ে। যদিও তাতে কোনো সমস্যা হতো না। তবে তামিমা আগের স্বামীকে তালাক না দিয়েই বিয়ে করেন নাসিরকে। এই ঘটনার পর কেঁদেই চলেছেন তামিমার ৮ বছরের মেয়ে।

এ কারণে তিনি থানায় জিডিও করেছেন তামিমার স্বামী রাকিব। সবচেয়ে আলোচনার বিষয় হচ্ছে নাসির সব জেনেশুনেই বিয়ে করেন তামিমাকে।

সম্প্রতি তামিমার প্রথম স্বামীকে ফোন করেন নাসির হোসেন। এ সময় দুজনের মধ্যে তামিমাকে নিয়ে দীর্ঘক্ষণ কথা হয়। সেই ফোনালাপ ভাইরাল হয়েছে।

দুজনের কথোপকথন হুবহু তুলে ধরা হলো –

নাসির : হ্যালো আসসালামু আলাইকুম। ভাইয়া আমি নাসির হোসেন বলছিলাম।

রাকিব : কোথা থেকে?

নাসির : ক্রিকেট খেলোয়াড় নাসির হোসেন।

রাকিব : কাকে চান?

নাসির : এটা রাকিবের নম্বর না? আপনি সেই রাকিব?

রাকিব : সেই রাকিব মানে?

নাসির : আমি আপনাকেই চাচ্ছিলাম। ভালো আছেন আপনি?

রাকিব : জি, আলহামদুলিল্লাহ।

নাসির : আপনাকে কিছু কথা বলার জন্য ফোন দিয়েছি। আপনি যা করলেন!

রাকিব : কী করলাম?

নাসির : আপনি নাকি জিডি করছেন? এগুলো করে কী পাচ্ছেন আপনি, আমাকে আজকে বলবেন?

রাকিব : কিছু পাচ্ছি না। আপনি তামিমার সম্পর্কে কিছু জানেন?

নাসির : সব কিছু জানি।

রাকিব : কী কী জানেন?

নাসির : সব কিছু।  ওর বাচ্চা আছে, বিয়ে হয়েছিল, বয়ফ্রেন্ড ছিল। জেনেশুনেই বিয়ে করছি। আপনি চান না তামিমা সুখে থাক?

রাকিব : আমি? তামিমা তো সুখেই আছে। আমি তো আর কোনো বিরক্ত করছি না।

নাসির : আপনি জিডি করছেন।

রাকিব : জিডি করব না? তামিমা তো আমাকে কোনো কাগজ দেয়নি। বুঝতে পারছেন না? তামিমার সঙ্গে আপনার যখন কথা হয়, তখন তামিমাকে বললাম নাসির কে? সে বলল, ‘আমার বন্ধু। আমার বাসায় এসেছিল জন্মদিনে। বাসায় আসে-যায়, শুধু বন্ধু।’ আপনি কথা শুনুন। আপনি জেনেশুনে আরেকজনের বউকে বিয়ে করে ফেলেছেন। তামিমা তো আমার সঙ্গে বসতে পারত– ‘রাকিব, তোমাকে ভালো লাগে না, চলে যাব।’ তা হলে সমস্যা ছিল না। ‘তুমি বসো, সব পেপার ক্লিয়ার করো। কাটছাঁট করো, সমস্যা নেই।’ আমারও তো একটা পেপার দরকার আছে, না? ভবিষ্যতে আমিও তো বিয়ে করব, তাই না? সেগুলো কিছু না করেই আপনাকে সঙ্গে বিয়ে করল?

নাসির : আপনি মনে করবেন না (যে) আমি লেটার না দেখে বিয়ে করেছি।

রাকিব : আপনি কী দেখেছেন জানি না। আমি ২০১১-তে বিয়ে করেছি। আমার মেয়ের বয়স আট বছর। তামিমার জন্য কী করেছি, কোনো ইতিহাস আপনি জানেন না। এখন আপনি যদি বলেন– আমি চাই না তামিমা সুখী হোক। আপনি চাননি আমি আর তামিমা সুখী থাকি? জানেন, একজনের মেয়ে আছে, সংসার আছে, তো আপনি এটি কীভাবে করলেন?

নাসির : আপনার সঙ্গে তো সংসার নেই, বুঝতে পারছেন না? ভাই, আমি এত ঘুরিয়ে পেঁচিয়ে কথা বলতে পারি না। শুধু এতটুকু জানতে চাই– আপনি কি চান না তামিমা সুখী থাক? যদি চান, তা হলে এটা নিয়ে আর কোনো কিছুই করবেন না।

রাকিব : তামিমা সুখে থাকবে কীভাবে?

নাসির : যদি তামিমা সুখে থাকত, তা হলে সে আপনার সঙ্গেই থাকত।

রাকিব : আপনি আমাকে ফোন দিয়েছেন কেন? আমি তো আপনাকে চিনি না। ফোন দেবে তামিমা আমাকে।

নাসির : তামিমা ফোন দেবে কেন?

রাকিব : অবশ্যই তামিমা ফোন দেবে। সমস্যা তো তামিমারই। নাকি আপনার এখন? আপনি যে বাসায় থাকছেন, সেই বাসার ফার্নিচারগুলোও আমার।

নাসির : তাই? আমি জানি, সব কিছুই জানি। আচ্ছা ভাই, আমার কথাগুলো শুনুন।

রাকিব :  ভাই, আমি এখন নামাজে যাব। আপনার সঙ্গে কথা বলতে পারছি না, এ জন্য সরি!


প্রসঙ্গত ভ্যালেন্টাইনস ডেতে কেবিন ক্রু তামিমা তাম্মিকে বিয়ে করেন নাসির।  তাদের জমকালো বিয়ের অনুষ্ঠানে ছবি উষ্ণতা ছড়িয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। ফেসবুক ব্যবহারকারীরা দুজনকে নিয়ে মেতে ছিলেন কয়েক দিন। কিন্তু এক সপ্তাহ পূর্ণ না হতেই জানা গেল নাসিরপত্নীর আগে আরেকটি বিয়ে হয়েছিল। তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব হাসান। তার দাবি, তামিমা তাকে ডিভোর্স না দিয়েই নাসিরকে বিয়ে করেছেন।