ট্রাম্পের চাপের মুখে চাকরি ছাড়েন অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ

মধ্যবর্তী নির্বাচনে ধাক্কা খাওয়ার পর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ইস্তফা দেন অ্যাটর্নি জেনারেল জেফ সেশনস। জানাগেছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের নির্দেশে পদ থেকে সড়ে দাঁড়াতে বাধ্য হন তিনি।

বুধবার (৭ নভেম্বর) সকালে মধ্যবর্তী নির্বাচনে ফলাফল স্পষ্ট হয়ে যাওয়ার পর হোয়াইট হাউসের চিফ অফ স্টাফ জন কেলি ফোনে সেশনসকে ট্রাম্পের নির্দেশের কথা জানান। সন্ধ্যায় বিচার বিভাগে এসে ইস্তফাপত্র লিখে দেন সেশনস।

ট্রাম্পকে লেখা ইস্তফাপত্রে সেশনস উল্লেখ করেছেন যে, প্রেসিডেন্টের অনুরোধেই তিনি পদ ছাড়ছেন।

তার বিদায়ের পর প্রশ্ন উঠে গিয়েছে, ২০১৬-র প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ নিয়ে চলতি এফবিআই তদন্তের ভবিষ্যৎ সম্পর্কে। অনেকের ধারণা এই তদন্ত রুখতেই সেশনসকে বিদায় করে দেওয়া হয়।

এদিকে, চাকরি হারানোর ভয়ে আছেন এফবিআই-এর বিশেষ কৌঁসুলি রবার্ট মুলার। অস্থায়ী অ্যাটর্নি জেনারেল ম্যাথু হুইটেকার বলেছেন, বিপজ্জনক সীমানায় পৌঁছে গিয়েছেন মুলার। ওই সীমা অতিক্রম করলে বিপদ ঘটতে পারে।

এদিকে, সেশনসকে শুভেচ্ছা জানিয়ে পরবর্তী অ্যাটর্নি জেনারেল কয়েক দিন পরে বেছে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ট্রাম্প।

মধ্যবর্তী নির্বাচনে মার্কিন কংগ্রেসে একাধিপত্য হারিয়েছে রিপাবলিকান পার্টি। সিনেটে জয় পেলেও হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস গিয়েছে ডেমোক্র‌্যাটদের দখলে।



মন্তব্য লিখুন :