জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরও ১ মাস বাড়িয়েছে শ্রীলঙ্কা

সম্প্রতি একের পর এক বিস্ফোরণে রক্তাক্ত হয়েছে দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলঙ্কা। মৃত্যু হয়েছে প্রায় ২৫০ জন মানুষের। ইস্টার উৎসবের দিন শ্রীলঙ্কার হোটেল ও গির্জায় বোমা হামলা চালিয়ে হত্যার মিছিল শুরু করেছিল সন্ত্রাসবাদীরা। ওই ঘটনার পরই শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছিল শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা।

শনিবার সেই জরুরি অবস্থার মেয়াদ আরও এক মাস বাড়িয়েছে সরকার শ্রীলঙ্কা সরকার।

দেশটির সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, ওই বোমা হামলার সঙ্গে জড়িত অধিকাংশ নেটওয়ার্ক ভেঙে দিয়েছে শ্রীলঙ্কা সরকার। হ্রাস পেয়েছে জঙ্গি হামলার হুমকিও। তবে অবশিষ্ট সন্দেহভাজনদের খোঁজে অভিযান চলতে থাকায় জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

শ্রীলঙ্কার একাধিক সংবাদমাধ্যমের প্রকাশিত বয়ান অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট সিরিসেনা বলেছেন, জনগণের নিরাপত্তার স্বার্থে, আইন-শৃঙ্খলা বজায় রাখার জন্য এবং জনগণের জরুরি সেবা ও সরবরাহ রক্ষণাবেক্ষণের জন্য জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে।

জরুরি অবস্থার মেয়াদ বাড়ায় শ্রীলঙ্কার নিরাপত্তা বাহিনী আরও এক মাসের জন্য জরুরি ক্ষমতা ব্যবহার করতে পারবে। আইনানুযায়ী এই ক্ষমতা বলে শ্রীলঙ্কার পুলিশ ও সামরিক বাহিনী আদালতের নির্দেশ ছাড়াই সন্দেহভাজন যে কাউকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারছে এবং ওই হামলার পর এ পর্যন্ত শতাধিক সন্দেহভাজনকে গ্রেপ্তার করেছে।

২১ এপ্রিল, সকাল ৮.৪৫ নাগাদ ৩টি গির্জা এবং ৩টি বিলাসবহুল হোটেলে পর পর বিস্ফোরণে এভাবেই শুরু হয়েছিল শ্রীলঙ্কার রবিবাসরীয় দিনটি। ছটি বিস্ফোরণেই থেমে থাকেনি। এরপর আরও দুটি বিস্ফোরণ ঘটে। পরে বিভিন্ন স্থান থেকে উদ্ধার করা হয় বিপুল পরিমাণ বোমা। এরমধ্যে রাজধানীর একটি সড়কের পাশে মেলে মতাধিক বোমা।


মন্তব্য লিখুন :