উত্তপ্ত পশ্চিমবঙ্গ, বিজেপি-পুলিশ তুমুল সংঘর্ষ চলছে

এক বিজেপি কর্মীর গ্রেপ্তারিকে কেন্দ্রে করে ফের উত্তপ্ত ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের বীরভূমের জেলা। পুলিশের সাথে বিজেপি কর্মীদের সংঘর্ষে পুলিশসহ অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়েছে। এখনো থেমে থেকে পুলিশের সাথে লড়াই চলছে বিজেপি কর্মীদের।

জানা যায়, মঙ্গলবার রাতে নানুরের বন্দর গ্রাম থেকে এক বিজেপি কর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ৷ সেই গ্রেপ্তারির প্রতিবাদে প্রথমে বুধবার সকাল থেকে রাস্তা অবরোধ করে বন্দর গ্রামের বিজেপি কর্মীরা। এরপর সেই অবরোধ ওঠাতে সেখানে আসে পুলিশ। স্থানীয় সূত্রে খবর, প্রথমে পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়ান বিজেপি কর্মী,সমর্থকরা।

মিছিলের গতি প্রতিহত করতে পুলিশ প্রথমে জলকামান, পরে কাঁদানে গ্যাস ও লাঠিচার্জ করে পুলিশ। সেন্ট্রাল অ্যাভিনিউয়ের মোড়েই আটকে দেওয়া হয় ওই মিছিলকে। অভিযোগ, বিজেপি কর্মীরা ইটপাটকেল ছুড়তে থাকেন। এর পরই পুলিশ মিছিলে উপর জলকামান দাগা শুরু করে পুলিশ। সেই থেকেই এলাকার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। বোমাবাজি শুরু হয়। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের একাধিক গ্রামেও। কার্যত অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে নানুর।

বর্তমানে সংলগ্ন এলাকায় বিশাল পুলিশ বাহিনী এলাকায় থাকলেও, তাঁরা গ্রামের ভিতরে ঢুকতে পারছেন না। বন্দর গ্রামের অশান্তির আঁচ আশপাশের গ্রামে ছড়িয়ে পড়ায়, ওই গ্রামগুলিতেও অশান্তি শুরু হয়েছে। তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ জারি রয়েছে। বর্ধমান জেলা থেকেও বিশাল পুলিশ বাহিনী আসছে ঘটনাস্থলে। তবে পরিস্থিতি এখনো উত্তপ্ত।

ঘটনার পর বিজেপি সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় বলেন, বাংলাকে সামলাতে পারছেন না, মমতার পদত্যাগ করা উচিত। আরেক সাংসদ কৈলাস বিজয়বর্গীয় বলেন, মমতার সরকার আর বেশি দিন নেই। বাংলা বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, এই আন্দোলন গ্রামে-গঞ্জে ছড়িয়ে পড়বে।

মন্তব্য লিখুন :