ভারত-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ চলাকালে বিমানে বার্তা ‘জাস্টিস ফর কাশ্মীর’

বিশ্বকাপে ভারত বনাম শ্রীলঙ্কা ম্যাচের মধ্যেই হঠাৎ কাশ্মীর নিয়ে ভারতের উদ্দেশে বার্তা। আর তা দেওয়া হল কি না আকাশপথে উড়তে থাকা বিমানের গায়ে লাগানো ব্যানারের মাধ্যমে!

এক বার নয়, একাধিক বার বিরাট কোহলি, রোহিত শর্মাদের মাথার উপরে চক্কর কাটতে থাকল সেই বিমান। যা নিয়ে উদ্বেগের বাতাবরণ তৈরি হয়েছে এবং এর প্রভাব সুদূরপ্রসারী হতে পারে বলেও অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন।

ভারতীয় গণমাধ্যম বলছে, ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড থেকে ফোন করে খুব জোরের সঙ্গে আইসিসিকে বলা হয়েছে, এই ঘটনার যথাযথ তদন্ত হতেই হবে।

খবরে বলা হয়েছে, গতকাল শনিবার হেডিংলেতে ম্যাচ চলাকালীন দেখা যায়, মাঠের উপরে আকাশে চক্কর কাটছে একটি বিমান। আর তার লেজের দিক থেকে উড়ছে একটি ব্যানার। তাতে লেখা ‘জাস্টিস ফর কাশ্মীর’। অর্থাৎ কাশ্মীর নিয়ে ন্যায়বিচার চাই। গোল করে মাঠের উপরে বেশ কয়েক বার চক্কর কেটে সেই বিমান অদৃশ্য হয়ে যায়। তত ক্ষণে ভারত-শ্রীলঙ্কা ম্যাচ শুরু হয়ে গেছে এবং প্রায় ভর্তি গ্যালারিতে আশি শতাংশ দর্শক ভারতীয়।

সঙ্গে সঙ্গে তীব্র চাঞ্চল্য তৈরি হয়। সবচেয়ে বড় প্রশ্ন দেখা দেয়, এ রকম স্পর্শকাতর বার্তা লেখা ব্যানার নিয়ে হেডিংলের ঠিক উপরে বিমানটি উড়ল কীভাবে? মাঠের কাছেই লিডস ব্র্যাডফোর্ড বিমানবন্দর। খেলা চলাকালীন অনেক বিমানই উড়ে গেল মাঠের উপরের আকাশ দিয়ে। সাধারণত, বিমানবন্দরের আশপাশে কঠোরতম নিরাপত্তা থাকে। তার উপরে বিশ্বকাপের মতো ইভেন্ট বলে বাড়তি নিরাপত্তার বলয় থাকার কথা। সেই নিরাপত্তার বলয়কে ফাঁকি দিয়ে একটি বিমান বার বার কীভাবে ভারতের উদ্দেশে রাজনৈতিক বার্তা নিয়ে আকাশে ঘুরতে থাকল, সেটাই এখন জানার বিষয়।

কয়েক দিন আগে এ মাঠেই রক্তারক্তি হয়ে যায় পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের ম্যাচে। গ্যালারিতে দুই দলের সমর্থকদের মধ্যে খণ্ডযুদ্ধ হয়। সেই ম্যাচেও আকাশে এ রকমই বার্তা নিয়ে উড়েছিল বিমান। সে দিন দেখা গিয়েছিল ‘জাস্টিস ফর বেলুচিস্তান’ ব্যানার। তার পরেই গ্যালারিতে ঝামেলা শুরু হয়।

এদিন অবশ্য এক বার নয়, ভারতীয় সময় রাত নয়টার মধ্যে (ইংল্যান্ডের সময় সাড়ে চারটে) তিন বার আকাশে চক্কর মারে ওই বিমান। এবং, তিন বারই নতুন নতুন বার্তা লেখা উড়তে দেখা যায় বিমানের লেজ থেকে।

আইসিসির দাবি, তারা পশ্চিম ইয়র্কশায়ার পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে আর্জি জানিয়েছে, দ্রুতই যেন বিমানচালকদের খোঁজ করা হয়। তবে নালিশ করেও সুরাহা কিছু হবে কি না, তা নিয়ে সন্দেহ থাকছে।

আনন্দবাজার বলছে, স্থানীয় কয়েকজনের কথায়, হেডিংলের আশপাশের অঞ্চল এবং ইয়র্কশায়ারে পাকিস্তানি বংশোদ্ভূতরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। প্রাথমিক খোঁজখবরে মনে করা হচ্ছে, এখানকার কেউ এমন কাণ্ড বাধিয়েছে। ভারতীয় বোর্ডের ফোনে ঘটনার গুরুত্ব আরও বেড়ে গেছে। কোহলিদের বোর্ড যদি চাপ দিতেই থাকে, তা হলে ইয়র্কশায়ার পুলিশকে সক্রিয় ভূমিকা নিতে হতে পারে।

মন্তব্য লিখুন :