একযোগে কংগ্রেসের ২২ মন্ত্রীর পদত্যাগ

ভারতের কর্ণাটক সংকট আরও ঘোরতর মোড় নিল। জোট সরকারকে বিপদে ফেলে ইস্তফা দিয়েছেন কংগ্রেসের সব মন্ত্রী।

সোমবার সকালে মুখ্যমন্ত্রী এইচডি কুমারস্বামীর কাছে ইস্তফাপত্র জমা দেন কংগ্রেসের ২২ জন মন্ত্রী।

গত কয়েকদিন ধরেই কর্ণাটকের রাজনীতি জুড়ে নতুন নাতক চলছে। ইতিমধ্যেই ইস্তফা দিয়েছেন কংগ্রেস-জেডিএস জোটের ১২ জন বিধায়ক। এই পরিস্থিতিতে সরকার বাঁচাতে সবরকমের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে কংগ্রেস। অন্যদিকে নজর রেখেছে বিজেপিও। তারা সরকার গঠনে প্রস্তুত বলে আগেই জানিয়ে দিয়েছে।

যেসব বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন, তাঁরা বর্তমানে মুম্বইয়ের হোটেলে আছেন। তবে তাদের স্পিকারের কাছে দেওয়া ইস্তফাপত্র ফিরিয়ে নেওয়ার কোনও সম্ভাবনা নেই। ফলে রীতিমত টানাপোড়েন শুরু হয়ে গিয়েছে কর্ণাটক সরকারে।

যাঁরা ইস্তফা দিয়েছেন, তাঁরা যদি তা ফিরিয়ে না নেন সেক্ষেত্রে জোট সরকারের বিধায়কের সংখ্যা ১০৪-এ নেমে আসবে। তাতে ২২৪টি আসনের বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা রক্ষা করা সম্ভব হবে না জোট সরকারের পক্ষে।

বর্তমানে ১১৮ জন বিধায়ক রয়েছে কংগ্রেস-জেডিএসের। ১১৩ জনের নিচে নেমে গেলেও ক্ষমতা হারাবে তারা। সোমবার বিকেলেই সামগ্রিক পরিস্থিতিতে পরবর্তী পদক্ষেপ কী হবে, তা নিয়ে বৈঠক করবে বিজেপি।

কংগ্রেসের আশা, যদি কোনওভাবে এই চারজন বিধায়কের ইস্তফাপত্র ফিরিয়ে নেওয়া যায়, তবে হয়তো এযাত্রায় বেঁচে যাবে কর্ণাটকের জোট সরকার৷

শনিবার কংগ্রেস-জেডিএস জোট সরকারের কমপক্ষে ১১ বিধায়ক ইস্তফা দেন কর্ণাটক অ্যাসেম্বলি স্পিকারের কাছে , তবে শনিবার ছুটির দিন বলে তাদের সোমবার আসার কথা বলেন স্পিকার৷ মঙ্গলবার সেই ইস্তফাপত্রগুলি খতিয়ে দেখবেন স্পিকার। এদের মধ্যে মধ্যে ৮জন কংগ্রেসের ও তিনজন জনতা দল সেকুলারের বিধায়ক বলে খবর৷

তবে শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত আশা ছাড়তে রাজি নয় প্রদেশ কংগ্রেস৷ প্রদেশ কংগ্রেসের অন্যতম নেতা ও কর্ণাটকের মন্ত্রী ডিকে শিবকুমার অবশ্য জানাচ্ছেন কেউ পদত্যাগ করছেন না৷ প্রত্যেক বিধায়কের সঙ্গে আলাদা করে কথা হয়েছে৷ তাঁরা কেউই নিজেদের দল ছেড়ে পদ ছেড়ে দিচ্ছেন না আশ্বস্ত করেছেন বলে তাঁর দাবি৷

মন্তব্য লিখুন :